খালেদা ছাড়া নির্বাচনে যাবে না শরিকেরা

প্রকাশিত

গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে ২০-দলীয় জোটের বৈঠক। ছবি: বিএনপির সৌজন্যেবিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটের শরিক দলগুলোর নেতারা মনে করছেন, সরকার বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বাইরে রেখে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ষড়যন্ত্র করছে। খালেদা জিয়াকে বাইরে রেখে নির্বাচন হলে সেই নির্বাচনে শরিক দলগুলো যাবে না।

গতকাল সোমবার রাতে ২০-দলীয় জোটের বৈঠকে শরিক দলগুলোর নেতারা তাঁদের এ মনোভাব খালেদা জিয়াকে জানান। গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এই বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন খালেদা জিয়া। রাত সাড়ে ৯টার দিকে শুরু হয়ে ১১টা পর্যন্ত বৈঠক চলে। বৈঠকে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর উপস্থিত ছিলেন।

উপস্থিত একাধিক সূত্র বলেছে, বৈঠকে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র নির্বাচনে প্রার্থিতা নিয়ে আলোচনা হয়। কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্‌রাহিম বৈঠকে খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ করে বলেন, মেয়র প্রার্থী হিসেবে তাবিথ আউয়াল ও আন্দালিব রহমানের নাম গণমাধ্যমে দেখা যাচ্ছে। জামায়াতে ইসলামীর প্রার্থী হিসেবে সেলিম উদ্দিনের নাম আসছে। তিনি বলেন, ‘জোটগতভাবে একক প্রার্থী হওয়াই ভালো। এ দুজনের (তাবিথ ও আন্দালিব) কাকে প্রার্থী করা হবে তা আপনার সিদ্ধান্ত।’

বৈঠকে উপস্থিত জামায়াতের কেন্দ্রীয় নেতা আবদুল হালিম বলেন, বিএনপির মহাসচিব জামায়াত নেতাদের সঙ্গে কথা বললে প্রার্থিতার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া যাবে। আন্দালিব রহমান বলেন, ‘আপনি যাঁকে প্রার্থী করবেন, আমরা তাঁর জন্য কাজ করব।’

তবে বৈঠকে কী সিদ্ধান্ত হয়েছে তা সাংবাদিকদের জানানো হয়নি। বৈঠকে জাতীয় পার্টির (জাফর) নেতা মোস্তফা জামাল হায়দার, এলডিপির রেদোয়ান আহমেদ, জাগপার রেহানা প্রধানসহ জোটের শরিক দলগুলোর নেতারা উপস্থিত ছিলেন।