সাত কলেজের অধিভুক্তি সমস্যা সমাধানের দাবি

প্রকাশিত

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজধানীর ঢাকার সাতটি কলেজকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত করা নিয়ে সৃষ্ট জটিলতার দ্রুত অবসানের দাবি জানিয়েছেন ঢাকা-৬ আসনের সংসদ সদস্য কাজী ফিরোজ রশিদ।

সোমবার জাতীয় সংসদে পয়েন্ট অব অর্ডারে দাঁড়িয়ে তিনি এ দাবি জানান।

কাজী ফিরোজ রশিদ বলেন, এ দেশের সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলন-সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়েছে ছাত্রসমাজ। কিন্তু দুর্ভাগ্য এই স্বাধীন দেশে অধিভুক্তি নিয়ে আন্দোলন করতে গিয়ে একজন ছাত্র সিদ্দিকুর রহমান তার দুটি চোখ হারিয়েছেন। চোখ হারানো এই ছাত্রের দায়িত্ব কে নেবে?

আরো পড়ুন :  সরকারি জায়গা দখল করে ভবন নির্মাণের অভিযোগ

ঢাকার সাতটি কলেজকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধিভুক্ত করায় ছাত্রদের অসুবিধা হচ্ছে, উল্লেখ করে তিনি বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে টানাপোড়েনের শিকার হচ্ছে শিক্ষার্থীরা। দুই বিশ্ববিদ্যালয়ের রশি টানাটানির কারণে শিক্ষার্থীরা এখনো পরীক্ষার ফল পাচ্ছে না। শিক্ষার্থীরা রাস্তা অবরোধ করায় দুর্ভোগে পড়ছে ঢাকাবাসী। কী প্রয়োজন ছিল এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধিভুক্ত করার? এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো তো ভালোভাবেই চলছিল। এই সমস্যার দ্রুত অবসান করতে হবে। এজন্য প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিতে হবে।

আরো পড়ুন :  দাউদকান্দি রবি অফিসে ৩৫ লাখ টাকার দুধর্ষ চুরি

এ বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রীকে ৩০০ বিধিতে জাতীয় সংসদে দাঁড়িয়ে বিবৃতি দেওয়ার আহ্বান জানান কাজী ফিরোজ রশিদ।

এরপর বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে স্বাধীনতা সংগ্রাম, মুক্তিযুদ্ধসহ সকল আন্দোলন-সংগ্রামে ছাত্রসমাজের গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকার কথা তুলে ধরেন। এ সময় তিনি শহীদ আসাদ ও মতিউরের স্মৃতিচারণ করে আবেগাপ্লুত হয়ে কেঁদে ফেলেন।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, আমরা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ওপর বাজেটে কর ধার্য করেছিলাম। শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করায় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে কর প্রত্যাহার করা হয়।

আরো পড়ুন :  চট্টগ্রামে প্রধানমন্ত্রী, প্রয়াত নেতার বাসায় যাবেন বিকেলে

তিনি আরো বলেন, দীর্ঘদিন ডাকসু নির্বাচন হয় না। ডাকসু ছিল রাজনৈতিক নেতৃত্ব তৈরির কারখানা। ছাত্রদের সম্পর্কে আমাদের সকলের যত্নবান হওয়া দরকার।