মাশরাফি ভাই তো একদিনে হন নাই!

প্রকাশিত

ক্রীড়া ডেস্ক :শুক্রবার থেকে ১৪ জন পেসারকে নিয়ে শুরু হয়েছে বিশেষ ক্যাম্প। আজ এই ক্যাম্পের তৃতীয় দিন। আজ রোববার ক্যাম্পের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেন তরুণ পেসার আবু হায়দার রনি। সুইং, ইয়র্কার, ব্লক হোলের প্রয়োগ, একুরেসি এসব বিষয় নিয়ে কাজ করছেন তারা।

এই ধরনের ক্যাম্প পেসারদের উন্নয়নে আসলেই জরুরি। মাশরাফির পর বলতে গেলে ওই মানের আর কোনো পেসার বাংলাদেশ পায়নি। এ বিষয়ে আবু হায়দার রনিকে প্রশ্ন করা হয় যে মাশরাফির পরে ভালো পেসার নাই, এটা শুনতে হতাশ লাগে কিনা? জবাবে তরুণ এই পেসার বলেন, ‘মাশরাফি ভাই তো অনেকদিন ধরে খেলতেছেন। আমাদের সবার আইডল তিনি। অনেক অভিজ্ঞ। আর মাশরাফি ভাই তো একদিনে হন নাই, অনেকদিন খেলার পর হয়েছেন। আমরা ডে বাই ডে ভালো খেলতে খেলতে ফিউচারে ভালো করব।’

 

ক্যাম্পের সার্বিক বিষয় নিয়ে তিনি বলেন, ‘ভালোই চলছে ক্যাম্প। এখানে নতুন বলে কাজ করছি। ডেথ ওভারের কাজ হচ্ছে, ইয়র্কার নিয়ে কাজ করছি। এই কাজগুলো করতে পারি তাহলে আমরা টি-টোয়েন্টি আর ওয়ানডেতে ভাল করব। কোর্টনি ওয়ালস স্যুয়িং নিয়ে কাজ করছেন। নতুন বলে কীভাবে সুইং করানো যায় সেটা নিয়ে। পুরাতন বলে ইয়র্কার নিয়ে কাজ হচ্ছে। টি-টোয়েন্টিতে ব্লক হোলের প্রয়োগটা ভাল থাকলে টিকে থাকা সহজ। আমাদের পেসারদের উচিত ইয়র্কারটা দুই-তিন ওভার হলেও নিয়মিত অনুশীলন করা।’

নতুন বলে ভাল করতে কি করতে হবে বলে মনে করেন? এমন প্রশ্নের জবাবে রনি বলেন, ‘একুরেসিটা ভাল থাকতে হবে। জায়গা থাকতে হবে। আসলে সব জায়গায় সবাই পারফেক্ট হয় না। ঘাটতি থাকে, ওই ঘাটতি নিয়ে কাজ করতে করতে ভালো হবে।’

 

রনি তার নিজের সমস্যা নিয়েও কাজ করছেন। নতুন বলে স্যুয়িং নিয়ে কাজ করছেন। সুযোগ পাওয়ার বিষয়টা ছেড়ে দিয়েছেন টিম ম্যানেজমেন্টের উপর, ‘নতুন বলে স্যুয়িং নিয়ে কাজ করছি। ডেথ ওভারের। আর সুযোগ পাওয়া হচ্ছে টিম ম্যানেজমেন্টের কাছে। উনারাই ভাল জানেন। আমি আমার কাজ করে যাব।’

৬-১৮ মার্চ শ্রীলঙ্কায় ত্রিদেশীয় নিদাহাস ট্রফি খেলতে যাবে বাংলাদেশ। যেখানে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ শ্রীলঙ্কা ও শক্তিশালী ভারত। শ্রীলঙ্কায় বাংলাদেশের পেসাররা কেমন করবেন। রনি জানান, ‘শ্রীলঙ্কায় আসলে যাইনি কখনো। তবে মনে হয় আমরা আমাদের স্কিলগুলো কাজে লাগতে পারলে ভালোই হবে।’

বলতে গেলে পেস বোলিং ক্যাম্প তো প্রতিবারই হয়। কিন্তু তারপরও ঘাটতি থেকে যায়। মাঠে হয় না সে রকম পারফরম্যান্স। পেসার কামরুল ইসলাম রাব্বি বলেন, ‘আমি মনে করি এখানে সব কিছুই পারফেক্ট করছি। ইয়র্কার বলেন অফ কাটার বলেন। মাঠে কিভাবে প্রয়োগ করব এটাই বড় ব্যাপার। আমি মনে করি আমরা যারা পেস বোলার আছি ইমপ্রুভ করতে হবে আত্মবিশ্বাস। আমরা মাঠে হয়তো কনফিডেন্টলেস থাকি আরেকটি জিনিস হতে পারে হবে কি হবে না এই চিন্তায় থাকি। আমি একটা বল করতে গেলাম আমি চিন্তা করি নিজের ক্ষেত্রে একটা ইয়র্কার করব। না হতে পারে। ‘না’ শব্দটা ভুলে যেতে হবে। আত্মবিশ্বাস নিয়ে বল করতে হবে। আ্ত্মবিশ্বাস অনেক গুরুত্বপূর্ণ। বাইরের দেশের পেস বোলাররা এদিক থেকে অনেক আগানো। ওরা সবসময় ইতিবাচক থাকে। যখনই দেশের বাইরে খেলতে যাই। আমি ওদের জিজ্ঞেস করি এমনকী মাশরাফি ভাইয়ের সাথেও শেয়ার করেছিলাম। তিনিও বলেছেন আত্মবিশ্বাস অনেক গুরুত্বপূর্ণ। যখন তুমি বল করতে যাবা তুমি তোমার প্ল্যানে ঠিক থাকো। সেটা হয়ে যাবে। প্ল্যান ঠিক থাকলে বাকিসব ঠিক থাকবে।