লিঙ্গ বাঁকা হলে হাতুড়ে ডাক্তার নয়, অভিজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিন!

প্রকাশিত

লিঙ্গ বাঁকা হলে হাতুড়ে ডাক্তার নয়, অভিজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিন!

লিঙ্গ বাঁকা হয়ে যাওয়া হলো একটি কানেকটিভ টিস্যু ডিসঅর্ডার। এ ক্ষেত্রে পুরুষাঙ্গের নরম টিস্যুতে ফাইব্রাস প্ল্যাকের বৃদ্ধি ঘটে। প্রতি ১০০ জন পুরুষের মধ্যে এক থেকে চারজনের এ সমস্যা হয়। বিশেষ করে লিঙ্গের টিউনিকা অ্যালবুজিনা অংশে ফাইব্রোসিং প্রক্রিয়া ঘটে। টিউনিকা অ্যালবুজিনো হলো একটি ফাইব্রাস, যা লিঙ্গের কর্পোরা কেভারনোসাকে ঢেকে রাখে। লিঙ্গের এ ধরনের সমস্যাকে চিকিৎসা পরিভাষায় পেরোনিজ ডিজিজ বলা হয়।

বক্রতার ভিন্নতা : অল্প মাত্রায় লিঙ্গ বাঁকা থাকাটা স্বাভাবিক। অনেক পুরুষ এ অবস্থা নিয়ে জন্মগ্রহণ করে। এটাকে বলে জন্মগত লিঙ্গের বক্রতা। এ ক্ষেত্রে লিঙ্গ সামনের দিকের চেয়ে এক পাশে বাঁকা হয়ে থাকে। তবে তুলনামূলক লিঙ্গের শরীর সোজা থাকে। এ ধরনের বক্রতা পেরোনিজ ডিজিজের কারণে হয় না।

উপসর্গ : লিঙ্গ শক্ত হলে ব্যথা হতে পারে, দড়ির মতো কিছু অনুভূত হতে পারে অথবা লিঙ্গ অস্বাভাবিক বেঁকে যেতে পারে। লিঙ্গ চিকন অথবা ছোট হয়ে যেতে পারে। রোগের প্রাথমিক স্তরে ব্যথা হতে পারে, যা সচরাচর ১২ থেকে ১৮ মাসে চলে যায়। শেষ দিকে লিঙ্গের উত্থান ব্যাহত হয়, অর্থাৎ পুরুষত্বহীনতা ঘটে। লিঙ্গের এ অবস্থায় যৌনমিলন যন্ত্রণাদায়ক বা কষ্টকর হতে পারে, যদিও অনেক পুরুষ রোগ থাকা সত্ত্বেও সন্তোষজনক যৌনমিলনের কথা বলে থাকেন।

আরো পড়ুন :  রাশিফলে জেনে নিন কেমন যাবে আজকের দিন

যেকোনো জাতি ও বয়সের পুরুষদের এ সমস্যা হতে পারে, তবে এটি সবচেয়ে বেশি দেখা যায় ৪০ বছরের অধিক ককেশিয়ান পুরুষদের মধ্যে। এ রোগ সংক্রামক নয় কিংবা কোনো ধরনের ক্যান্সারের সাথেও সম্পৃক্ত নয়। এ রোগ শুধু পুরুষের লিঙ্গে হয়।

রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসা : একজন দক্ষ সার্জন বা ইউরোলজিস্ট এ রোগ নির্ণয় করতে পারেন এবং চিকিৎসার ব্যাপারে পরামর্শ দিতে পারেন। অনেক পুরুষ তাদের লিঙ্গ বাঁকা দেখলেই চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন ওষুধ সেবন করেন এবং লিঙ্গে বিভিন্ন মলম বা তেল মালিশ করেন। এটা কখনোই করা উচিত নয়। এতে লিঙ্গের আরে ক্ষতি হয়ে থাকে। সাধারণভাবে অনেকে ভিটামিন-ই ও পটাশিয়াম অ্যামাইনোবেনজয়েট সেবন করেন। কিন্তু এগুলো কার্যকর নয়। বর্তমানে অনেক নতুন কিছু ওষুধ যেমন- অ্যাসিটাইল এল-কারনিটিন, প্রোপিওনিল এল-কারনিটিন, সিলডেনাফিল ও পেনটোক্সিফালিন প্রেসক্রাইবড করে থাকেন। কিন্তু এগুলো কার্যকর নয়।

আরো পড়ুন :  আপনার টুথপেস্ট কী দিয়ে তৈরি জানেন?

লিঙ্গ বাঁকা হওয়া বা পেরোনিজ ডিজিজ শারীরিক ও মানসিকভাবে একটি বিধ্বংসীকারক রোগ হতে পারে। যদিও বেশির ভাগ পুরুষ এ সমস্যা নিয়ে যৌন কাজ চালিয়ে যেতে পারেন। তবু কারো কারো পুরুষত্বহীনতা ঘটতে পারে। তাই লিঙ্গ বাঁকা হলে হাতুড়ে ডাক্তারের কাছে না দৌড়ে একজন অভিজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

লেখক : স্বাস্থ্য নিবন্ধকার, গল্পকার ও সহযোগী অধ্যাপক, অর্থোপেডিকস ও ট্রমা বিভাগ, ঢাকা ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল। চেম্বার : পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টার লি., ২, ইংলিশ রোড, ঢাকা। ফোন: ০১৭১৬২৮৮৮৫৫