হাত হারানো রাজীব মারা গেছেন, দাফন নিজ গ্রামে

প্রকাশিত

সিক্স প্রতিবেদক : রাজধানীর বাংলামোটরে দুই বা‌সের প্রতি‌যো‌গিতায় ডান হাত হারানো তিতুমীর কলেজের ছাত্র রাজীব হোসেন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

সোমবার (১৬ এপ্রিল) দিবাগত রাত ১২টা ৪০ মিনিটের দিকে ঢাকা মে‌ডি‌কেল ক‌লেজ হাসপাতা‌লে তিনি মারা যান।

রাজীবের দুজন স্বজন ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) বাচ্চু মিয়া গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অর্থোপেডিক বিভাগের চিকিৎসক ডা জাহিদুল রাজিবের মৃত্যুর সত্যতা নিশ্চিত করেন।

খবর পেয়ে রাতেই নিহতের মামা ও চাচা হাসপাতালে উপস্থিত হন। রাজীবের মরদেহ ঢাকা মেডিকেলের মর্গে রাখা হয়েছে।মঙ্গলবার ময়নাতদন্তের পর সব আনুষ্ঠানিকতা শেষে তার মরদেহ পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার নিজ গ্রামে নিয়ে যাওয়া হবে। সেখানেই রাজীবের দাফন সম্পন্ন হবে।

আরো পড়ুন :  শাকিবের বিরুদ্ধে মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের তাগিদ

গত ৩ এপ্রিল বিআরটিসির একটি দোতলা বাসের পেছনের ফটকে দাঁড়িয়ে গন্তব্যের উদ্দেশ্যে যাচ্ছিলেন মহাখালী থেকে সরকারি তিতুমীর কলেজের স্নাতকের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র রাজীব হোসেন। বাসটি হোটেল সোনারগাঁওয়ের বিপরীতে পান্থকুঞ্জ পার্কের সামনে পৌঁছালে হঠাৎ করে পেছন থেকে স্বজন পরিবহনের একটি বাস ওভারটেক করে।

সে সময় বিআরটিসির দোতলা বাসটির পেছনের ফটকে দাঁড়িয়ে থাকা রাজীবের ডান হাতটি বাইরের দিকে সামান্য বেরিয়েছিল। স্বজন পরিবহনের বাসটি বিআরটিসি বাসের গা ঘেঁষে পেরিয়ে যাওয়ার সময় রাজীবের হাতটি কাটা পড়ে। তাকে দ্রুত পান্থপথের শমরিতা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু চিকিৎসকেরা চেষ্টা করেও বিচ্ছিন্ন সে হাতটি রাজীবের শরীরে আর জোড়া লাগাতে পারেননি। পরে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আরো পড়ুন :  হজ নিবন্ধন শুরু সরকারি ব্যবস্থাপনায়

ঢাকায় রাজীব হোসেন যাত্রাবাড়ীর মীর হাজিরবাগের একটি মেসে থাকতেন। পড়াশোনা চালাচ্ছিলেন স্বজনদের সহযোগিতায়। রাজীবের মা-বাবা অনেক আগেই মারা গেছেন। তিন ভাইয়ের মধ্যে রাজীব সবার বড়। বাড়ি পটুয়াখালীর বাউফলের দাসপাড়ায়। রাজীব টিউশনি করতেন এবং চাচা, খালাসহ সবার সহযোগিতায় পড়াশোনা চালিয়ে নিচ্ছিলেন।

রাজীব হোসেনের চিকিৎসার যাবতীয় খরচ সরকার বহন করবে বলে ঘোষণা দিয়েছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। সুস্থ হলে তাকে সরকারি চাকরি দেওয়ার আশ্বাসও দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু সুস্থ্য হয়ে সেই সুযোগ গ্রহণ করার আগেই পৃথিবী থেকে চিরতরে বিদায় নিলেন রাজীব।