নওগাঁ মান্দায় দক্ষিন মৈনম স্কুলের নৈশ্যপ্রহরী আবুল ধর্ষন করতে গিয়ে গনধোলায়ে আটক

প্রকাশিত

ভ্রাম্যমান প্রতিনিধিঃ নওগাঁ জেলার মান্দা উপজেলার ৬নং মৈনম ইউনিয়নের দক্ষিন মৈনম সরদার পাড়ায় রিকশাচালকের স্ত্রীকে ধর্ষন করতে গিয়ে দক্ষিন মৈনম স্কুল এ্যান্ড কলেজের নৈশ্যপ্রহরী মৃতঃ বাহার উদ্দীনের ছেলে আবুলকে স্থানীয়রা গনধলায় দিয়ে আটক করে পুলিশে দিয়েছে।
স্থানীয়রা জানায়,উক্ত ইউনিয়নের স্ত্রী- সন্তান থাকা সত্ত্বেও আবুল হোসেন দীর্ঘদিন থেকে দক্ষিন  মৈনম স্কুল এ্যান্ড কলেজে রাতের ডিউটি বাদ দিয়ে,এলাকার যে মহিলার স্বামী নিজ কর্মের কারনে দুরে থাকে, তাদের বাড়ীর অবিবাহিত বিবাহিত মহিলাদের কুপ্রস্তাব দিতো এবং বিভিন্ন ধরনের আকাম কুকাম করে আসতো। এতে করে একাধিক ব্যাক্তির ঘর-সংসারও ভেঙ্গেছে।এ নিয়ে একাধিকবার গ্রাম্য শালিশ-বিচারও হয়েছে তাকে নিয়ে। বিচারে জরিমানা হয়, সে মেনেও নেয় কিন্ত এই ইউনিয়নের কোন এক সল্ট্যা নেতার ছত্রছায়ায় থাকায়,পরর্বতীতে সেই জরিমানা আর দেয় না বা কেউ উদ্ধার করতে পারে না।এতে করে তার কুকর্মের মাত্রা আরো বেড়ে যায় এবং তার অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে যায় এলাকাবাসী।

আরো পড়ুন :  বড়লেখায় প্রবাসীর স্ত্রী, ছেলে ও মেয়ের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

বর্তমান ঘটনা, মোঃ ছাইফুল রহমান অভাবের তাড়োনায় ঢাকায় রিকশা চালানোর কারনে তার ২ সন্তানের জননী মোছাঃ মরিয়াম বেগম ছোট ছোট দুটি সন্তানকে নিয়ে বাড়ীতে একা থাকতো। এ সুযোগে বখাটে আবুল প্রায়ই রাতে তার বাড়ীর জানালা দিয়ে দরজা খুলে দিতে বলে,জরুরি কথা আছে,এমন অনেক কথা বলতো কিন্তু মরিয়াম বেগম দরজা খুলে দেয় না। পরের দিন শশুর, শাশুড়ী,দেবর,ভাশুর সহ সবাইকে বলে দেয় এবং তারা বখাটে আবুলের অভিভাবক সহ সবাই বিষয়টি জানায় ও উত্তাক্ত্য করতে নিষেধ করে। তারপরও সে একই ভাবে এ কুপ্রস্তাব গুলো দিত। ঘটনার দিন গত ৪/৫/২০১৮ ইং রোজ শুক্রবার রাত অনুমানিক ১০ থেকে সাড়ে টার সময়,আবুল সেই বাড়ীর প্রাচীর টপকে ভীতরে গিয়ে মরিয়াম ধরে ধর্ষনের চেষ্টা চালায়,মরিয়াম বেগম ডাক চিৎকার দিলে বখাটে আবুল একটি পাঁচশত টাকার নোট বের করে দিয়ে বলে,ময়না,,এই টাকাটা নে,কাপড় চোপড় ও কিনে দেবো,যা চাইবি তাই দিবো শুধু একটাবার,,,মরিয়াম বেগম ডাক চিৎকার দিতেই থাকিলে সাথে থাকা ছোট বাচ্চাও কান্নাকাটি শুরু করে দেয়। কান্নাকাটি ও ডাক চিৎকার শুনে এলাকার লোকজন ও দেবর,ভাশুর সহ সবাই এসে কুখ্যাত আবুলকে ধরে ফেলে গন ধলায় দিয়ে হাত,পা বেঁধে রাখে,খবর পেয়ে সাংবাদিক,স্থানীয় মেম্বার, দাফাদার,চৌকিদার উপস্থিত হয়ে থানায় খবর দিলে পুলিশ খুব তারাতারি সেখানে আসে,ও বখাটে আবুলকে থানায় নিয়ে যেতে লাগলে কোন এক অজানা কারনে মরিয়ামের দেবর,ভাশুর,শশুর সহ অনেকে বাঁধা দেয়,পরর্বতীতে সকালে থানা পুলিশ এসে আসামী আবুলকে থানায় নিয়ে যায় ও তাদেরকেও থানায় আসতে বলে।পরর্বতীতে এ বিষয়ে মরিয়াম বাদী হয়ে মান্দা থানায় একটি মামলা দায়ের করে।