নৌকায় ভোট পেতে জনগণের দোরগোড়ায় যেতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা তার দলের সকল ইউনিটের দ্বন্দ্ব নিরসন করে দলের জন্য একতাবদ্ধ হয়ে আগামী নির্বাচনে কাজ করতে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।
শনিবার প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন-গণভবনে আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় শেখ হাসিনা বলেছেন, আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন দেওয়ার ক্ষেত্রে তৃণমূলের মতামত নেওয়া হবে। তারপরও যাকে নৌকা প্রতীক দেওয়া হবে, তার পক্ষেই সবাইকে কাজ করতে হবে। নির্বাচনে প্রতিটা আসন গুরুত্বপূর্ণ। সব স্থানেই সবাইকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে।
তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ করা মানে শুধু নিজের উন্নয়ন করা নয়, দেশ ও দশের জন্য কাজ করাই এই দলের মূল উদ্দেশ্য। বঙ্গবন্ধু দলকে সময় দেওয়ার জন্য মন্ত্রীত্ব ছেড়েছিলেন। এই দলের জন্য কাজ করতে হলে মানুষের জন্য কাজ করতে হবে।
এসময় শেখ হাসিনা আরও বলেন, বাংলাদেশের একটি মানুষও অশিক্ষিত থাকবে না। না খেয়ে থাকবে না। মানুষ নৌকায় ভোট দিয়েছে, সুফল পেয়েছে। আগামীতেও নৌকায় ভোট পেতে জনগণের দোরগোড়ায় যেতে হবে।
আগামী নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট চেয়ে তিনি বলেন, সামনে নির্বাচন। এই নির্বাচন কঠিন হবে। এই নির্বাচনে জয়ী না হলে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার থেমে যাবে, দারিদ্রের হার বেড়ে যাবে, সামাজিক নিরাপত্তার জন্য যেসব কর্মসূচি চলছে তা বন্ধ করে দেবে, উন্নয়ন কাজ বন্ধ হয়ে যাবে। এর আগেও এরকম হয়েছিল। তাই সব দ্বন্দ্ব নিরসন করে স্থানীয়ভাবে দলের জন্য কাজ করতে হবে।
এসময় তার প্রতিপক্ষ বিএনপির সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, যারা অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করেছিল, তারা কখনোই এদেশের উন্নয়ন চায়নি। জিয়াউর রহমান সাত মার্চের ভাষণ বাজাতে দেননি দেশে। কিন্তু এই ভাষণ বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকায় স্থান পেয়েছে।
খালেদা জিয়ার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এতিমখানার জন্য টাকা এনে সেই টাকা কীভাবে লুটপাট করা হলো আপনারা তা জানেন। বিএনপির এতো জাঁদরেল আইনজীবী তারা কী করলো, তারা তো প্রমাণ করতে পারলো না যে- খালেদা জিয়া দুর্নীতি করে নাই। এই মামলা ১০ বছর ধরে চলেছে। এখানে আমার কী করার আছে। মামলায় দোষী প্রমাণিত হওয়ায় খালেদা জিয়ার জেল হয়েছে। তার দুই সন্তানও দুর্নীতি মামলার আসামি। ২০১৪ সালের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তারা সাড়ে তিন হাজারের মতো মানুষকে আগুন দিয়ে পুড়িয়েছে; গাড়ি পুড়িয়েছে।
দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি আরও বলেন, উন্নয়নের তথ্যগুলো জনগণের কাছে বারবার তুলে ধরতে হবে। বিএনপি-জামায়াত স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে না, তাই মুক্তিযুদ্ধে পক্ষের শক্তিকে ক্ষমতায় রাখতে হলে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আনতে হবে।

3Shares
আরো পড়ুন :  জয়পুরহাটের কালাইয়ে অভিভাবক সমাবেশ ও বার্ষিক ক্রিড়া প্রতিযোগীতার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত