গুজব ছড়ানো’য় অভিনেত্রী নওশাবা রিমান্ডে

প্রকাশিত

নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মাঝে ‘গুজব ছড়ানো’র অভিযোগে গ্রেপ্তার হওয়া অভিনেত্রী কাজী নওশাবা আহমেদকে রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে দায়ের করা মামলায় অভিনেত্রী-মডেল কাজী নওশাবা আহমেদকে চারদিন হেফাজতে রেখে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দিয়েছে আদালত।

আজ রবিবার ঢাকা মহানগর হাকিম মাজহারুল হক এই হেফাজতের আদেশ দেন। এদিন দুপুরে এই অভিনেত্রীকে উত্তরা পশ্চিম থানায় হস্তান্তর করে র‌্যাব। এরপর তাকে আদালতে হাজির করে সাতদিনের হেফাজত চান মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উত্তরা পশ্চিম থানার এসআই বিকাশ কুমার পাল। এ সময় এই অভিনেত্রীর পক্ষে আইনজীবী এ এইচ এম ইমরুল কাওসার রিমান্ড আবেদন বাতিল চেয়ে জামিনের আবেদন করেন।

আদালতে শুনানিতে নওশাবার আইনজীবী এ এইচ এম ইমরুল কাওসার বলেন, ‘ওই ঘটনায় নওশাবা ভুল স্বীকার করে ফেইসবুকেই দুঃখ প্রকাশ করেছেন। কোন উসকানির উদ্দেশ্য তার ছিল না।’

আরো পড়ুন :  মানিকগঞ্জে স্কুলছাত্রকে কুপিয়ে হত্যা

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে নওশাবা জানান, ফেইসবুক লাইভের সময় তিনি ঘটনাস্থলে নয়, উত্তরায় একটা শুটিং স্পটে ছিলেন। কিন্তু এমনভাবে লাইভ করছিলেন যেন তার সামনেই ঘটনা ঘটছে। আসলে ওই সংঘর্ষের পর অন্য একজনের অনুরোধে নওশাবা এই কাজ করেছেন বলে র‌্যাবের গণমাধ্যম শাখার পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান জানিয়েছিলেন।

এর আগে গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর উত্তরা থেকে নওশাবাকে আটক করে হেফাজতে নেয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এর আগে বিকালে ফেসবুক লাইভে এসে নওশাবা বলেন, রাজধানীর জিগাতলায় একজন শিক্ষার্থীর চোখ তুলে ফেলা ও চার শিক্ষার্থীকে মেরে ফেলা হয়েছে। তবে এসব তথ্যের কোনও সত্যতা পাওয়া যায়নি। এদিকে নওশাবারও ওই লাইভ ভিডিও হাজার হাজার শেয়ার হয়। রীতিমতো গুজব রটে যায় সোশ্যাল সাইটে।

আরো পড়ুন :  ভণ্ড বাবার যৌন লালসার শিকার ৪০ নাবালিকা

নওশাবা ফেসবুক লাইভে বলেছিলেন, ‘জিগাতলায় আমাদের ছোট ভাইদের একজনের চোখ তুলে ফেলা ও চারজনকে মেরে ফেলা হয়েছে। একটু আগে ওদেরকে অ্যাটাক করা হয়েছে। ছাত্রলীগের ছেলেরা সেটা করেছে। প্লিজ-প্লিজ ওদেরকে বাঁচান। তারা জিগাতলায় আছে। আপনারা এখনই রাস্তায় নামবেন ও আপনাদের বাচ্চাদের নিরাপদ জায়গায় নিয়ে যাবেন, এটা আমার রিকোয়েস্ট। বাচ্চাগুলো নিরাপত্তাহীনতায় আছে। আপনারা প্লিজ কিছু একটা করেন। আপনারা সবাই একসাথে হোন। আমি এ দেশের মানুষ, এ দেশের নাগরিক হিসেবে আপনাদের কাছে রিকোয়েস্ট করছি।