কিশোরগঞ্জে জোড়া খুন মামলায় ৪ জনের মৃত্যুদন্ড ও ২১ জনের যাবজ্জীবন

প্রকাশিত

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি: কিশোরগঞ্জে চাঞ্চল্যকর চাচা ভাতিজা জোড়া খুনের মামলায় চারজনকে মৃত্যুদন্ড ও ২১ জনকে যাবজ্জীবন কারাদ- দিয়েছে আদালত। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ-৩ আদালতের বিচারক মুহাম্মদ আবু তাহের এ রায় দেন। রায়ে ফাঁসির দ-প্রাপ্ত প্রত্যেককে পাঁচ লক্ষ টাকা করে জরিমানাও করা হয়েছে।মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১২ সনের ২৪ আগস্ট করিমগঞ্জ উপজেলার লাখপুর গ্রামের নূরুল্লাহর একটি মোবাইল ফোন চুরির ঘটনাকে কেন্দ্র করে তার পক্ষের লোকজনের সাথে চর দেহুন্দা গ্রামের আল আমীন ও তার লোকজনের সাথে সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে গুরুতর আহত চাচা কুবেদ মিয়া ঘটনার দিন সন্ধায় কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা হাসপাতালে ও তার ভাতিজা জাকারুল চিকিৎসাধীন অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যায়।এ ব্যাপারে কুবেদ মিয়ার স্ত্রী সুজাতা আক্তার বাদী হয়ে করিমগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পুলিশ তদন্ত শেষে ২৫ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে।ফাঁসির আসামীরা হলেন চর দেহুন্দা গ্রামের আলামিন, মিজানুর রহমান, নাজমুল ও স্বপন মিয়া। যাবজ্জীবন কারাদ-প্রাপ্তরা হলেন একই গ্রমের দিদার, গিয়াস উদ্দিন সরকার, হাবিবুর রহমান হবি, দুলাল, ইসরাইল, জসিম উদ্দিন. রফিকুল ইসলাম মেম্বার, ইসলাম উদ্দিন, সাহাবুদ্দিন, আশরাফ উদ্দিন, কাঞ্চন মিয়া, কাঞ্চন (২), আলম, সেলিম, লোকমান, হারুন, সোহেল, আজাদ, রুকন, রতন ও শামীম। দ-প্রাপ্ত আসামী প্রত্যেকেই জেল হাজতে রয়েছেন।
রাষ্ট্রপক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন পিপি অ্যাডভোকেট শাহ আজিজুল হক, স্পেশাল পিপি আলহ্জ্জা অ্যাডভোকেট আতাউর রহমান ও এপিপি আব্দুস সালাম। আসামী পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দিন ফারুকী ও মহিউদ্দিন।

আরো পড়ুন :  অ্যাকশন দৃশ্যের জন্য ৪৬৭ ঘণ্টা প্রশিক্ষণ ( ভিডিও)

 

13Shares