পূবাইলে বিভিন্ন সম্প্রদায় সম্প্রীতি ও সহাবস্থানে রেকর্ড গড়েছে।

প্রকাশিত

আর জে রফিক-                                                                                                          পূবাইলের ৮টি পূজা মন্ডপ ঘুরে আজ শুক্রবার বিকেলে মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ  চুমকি বলেন গাজীপুর সিটির পূবাইলে বিভিন্ন সম্প্রদায় পারস্পরিক সহাবস্থান ও সম্প্রীতির সঙ্গে বসবাস করে রেকর্ড গড়েছেন। শারদীয় দূর্গা পূজার দশমীর দিনে পূবাইলের কেন্দ্রীয় পূজা মন্ডপ পূবাইল বাজার,হারবাঈদ,ভাদুন,ছিকলিয়া,উদুর,সুরুল,সাতানিপাড়া সহ বিভিন্ন মন্ডপ পরিদর্শনে করেন তিনি  । প্রতি বছরের মতো এবারও পূবাইল থানার  হিন্দু সম্প্রদায় যথাযোগ্য মর্যাদা ও উৎসাহ-উদ্দীপনায় দুর্গোৎসবের আয়োজন করেছে। পূবাইল মেট্রো থানার চারটি ওয়ার্ডের মণ্ডপগুলোও ছিল উৎসবমুখরিত। হিন্দু ধর্মাবলম্বীর পাশাপাশি অন্য ধর্মের মানুষও সার্বজনীন দুর্গোৎসবের আনন্দ ভাগ করে নেয়অশুভকে বিনাশ করে মানব মনে সঞ্চারিত হোক শুভ চেতনা- এটাই হোক বিজয়া দশমীর প্রত্যাশা।  এক ধর্মাবলম্বী অন্য সম্প্রদায়ের বিপদে-আপদেও পাশে দাঁড়ায়।ভীতিমুক্ত পরিবেশে ভক্তকুল সমবেত হয়েছে পূজামণ্ডপগুলোতে। দুর্গোৎসবের সঙ্গে বাংলার প্রকৃতিরও রয়েছে নিগূঢ় সম্পর্ক। শরতের শুভ্র কাশফুলের মতো মানব হৃদয়েও পুণ্যের শ্বেতশুভ্র  প্রস্ফুটিত হোক। ।তিনি আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে ধন্যবাদ দিয়ে বলেন- পূবাইল থানার অফিসার ইনচার্য নাজমুল হক ভূইয়ার যথাযত ব্যবস্থায় উৎসব মুখর অবস্থায় হিন্দু সম্প্রদায়    তাদের পূজা পালন করতে পেরেছে।তবে সম্প্রীতির বিষয়টি কেবল বিশেষ উপলক্ষ বা পর্বে সীমাবদ্ধ থাকা বাঞ্ছনীয় নয়। সর্বসময়ে সংখ্যালঘুসহ সব ধর্মাবলম্বীর নিরাপত্তা ও নির্বিঘ্নে ধর্ম পালন যেমন জরুরি, তেমনি জরুরি বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মানুষের মধ্যে সদ্ভাব ও সম্প্রীতি বৃদ্ধি।
এ সময় মন্ত্রীর সাথে বিভিন্ন মন্দির পরিদর্শন করেছেন ৪০ ওয়ার্ড কাউন্সিলর আজিজুর রহমান শিরিশ ৪১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোমেন মিয়া, মহিলা কাউন্সিলর জোৎনা বেগম,গাজীপুর মহানগর যুবলীগ সদস্য মোঃ রাজিবুল হাসান (রাজিব)
পূবাইল থানা যুবলীগ নেতা শেখ আব্দুল হালিম,মটর শ্রমিকলীগ নেতা হযরত আলী,
পূবাইল থানা ছাত্রলীগ সভাপতি টুটুল মৃধা,যুবলীগ নেতা মাসুদ সরকার ও আওয়ামিলীগের সংগঠনের নেতা কর্মীবৃন্দ।