নির্বাচন কমিশনে বিভক্তি একেবারেই হাস্যকর : সেতুমন্ত্রী

প্রকাশিত

স্টাফ রিপোর্টার: বিএনপির মহাসচিব ‘নির্বাচন কমিশন বিভক্ত’ বলে যে মন্তব্য করেছেন তা একেবারেই হাস্যকর বলেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘ক‌মিশনের ভেতরে মতামতের বিষয়‌টি গোপনীয়। তারপরও তাদের মধ্যে মতবিরোধ থাকতে পারে। এটাই তো গণতন্ত্রের বিউটি। পাঁচজন কমিশনারের একজন ভিন্নমত পোষণ করলেই কমিশন বিভক্ত হয়ে যায় না।’
রোববার দুপুরে রাজধানীর ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে ‘কার্যকর ট্র্যাফিক ব্যবস্থাপনা: দেশের সার্বিক উন্নয়নের অনুঘটক’শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।
সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেব ভুলে গেছেন, নির্বাচন কমিশনার পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট। প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে আরও চারজন কমিশনার আছেন। একজন কমিশনার যদি কোনও ইস্যুতে ভিন্নমত পোষণ করেন, অথবা নোট অব ডিসেন্ট দেন, সেটা গণতন্ত্র। সেখানে অভ্যন্তরীণ গণতন্ত্র (ইন্টারনাল ডেমোক্রেসি) কাজ করছে; আমরা সেটাই মনে করবো। এটা নিয়ে তিনি (মির্জা ফখরুল ইসলাম) যে বিভক্তির অভিযোগ করেছেন, তা হাস্যকর।’
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব দলকে সমাবেশের অনুমতি দেয়ার নির্দেশ দিলেও পুলিশ কেন সিলেটে ঐক্যফ্রন্টকে সমাবেশের অনুমতি দিচ্ছে না এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, অনুমতি নিয়ে নাটক করা তাদের পুরনো অভ্যাস। এর আগে তারা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ঠিকই অনুমতি পেয়েছিল। কিন্তু এটা নিয়ে নাটক করতে দ্বিধা করেনি। অনুমতির ইশারা পুলিশ তাদের অলরেডি দিয়ে দিয়েছে।
সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘পুলিশ তাদের অনুমতি দিয়ে দিয়েছে। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা হয়েছে। সভা সমাবেশ যে যেখানে করতে চায়, নিষেধ থাকবে না। থাকার কথা নয়।’
সমাবেশ বড় নেতাদের নিরাপত্তার বিষয়টি পুলিশ খতিয়ে দেখেন জানিয়ে আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, ‘যখানে বড় বড় নেতারা কোনও সমাবেশে যান, সেখানে তাদের নিরাপত্তার বিষয়টি পুলিশ খতিয়ে দেখেন।
Shares
আরো পড়ুন :  স্বল্প ব্যয়ে নতুন পদ্ধতিতে কর্মী মালয়েশিয়ায় যাবে