ঠাকুরগাঁওয়ে ফুলকপির বাজার ধস!!

প্রকাশিত

বালিয়াডাঙ্গী (ঠাকুরগাও) সংবাদদাতা : কয়েকদিন আগেই পাইকারি বাজারে ফুলকপির প্রতি কেজি ২৫-৩০ টাকা ছিল। এ বাজার দরের সংবাদ পুরানো। এখন ফুলকপির মুল্য প্রতিকেজি ৬ থেকে ৮ টাকা। দিন যত চলে, বাজারে তত দাম কমে ফুলকপির। এমন দরপতনে কৃষকের মাথায় হাত। সপ্তাহ আগে পাইকারি বাজারে ফলকপির দাম ছিল প্রতি মণ এক হাজার থেকে ১২শ টাকা। ৩রা নভেম্বর শনিবার সেই ফুলকপি ৩ থেকে ৩৫০ টাকা মণ দরে বিক্রি হচ্ছে।
ঠাকুরগাঁও জেলার রানীশংকৈল, বালিয়াডাঙ্গী, হরিপুর উপজেলায় আগাম ফুলকপি চাষ করেন কৃষকেরা। দামও ভাল ছিল। অনেকে চাষিই বলেছিল ফুলকপির এমন আকাশ ছোঁয়া দাম আগে কখনো দেখেনি। কিন্ত সপ্তাহ ব্যবধানে দাম পাতালে ঠেকেছে।
শনিবার সকালে উপজেলার কাঠালডাঙ্গীবাজার এলাকায় গিয়ে দেখা যায় ফুলকপির বাজারের এমন চিত্র। এই এলাকার সাইরুল নামে এক ফুলকপি চাষী বলেন, তিনি ৩৩ শতাংশ জমিতে ফুলকপি চাষ করেছেন, এতে খরচ হয়েছে ৯হাজার টাকা। বিক্রি করেছেন ২৬ হাজার টাকা। তবে এখন আর লাভের মুখ দেখছে না চাষীরা।
উপজেলা কৃষি সম্পসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, উপজেলায় আগাম ফুলকপি চাষ করা হয়েছে ১শ ৫০ হেক্টর জমিতে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নইমুল হুদা সরকার ও বালিয়াডাঙ্গী কৃষি কর্মকর্তা শাফীয়ার রহমান, সরকারের কৃষি পরিবেশ বান্ধবনীতি ও সার বীজের সহজ লভ্যতার কারণেই হরিপুরে উপজেলায় ফুলকপির বাম্পার ফলন হয়েছে বলেও মনে করছেন তারা।
তারা বলেন, দেশের বিভিন্ন এলাকায় ফুলকপি এখন আগাম চাষ করা হচ্ছে। তাই এই এলাকায় আগাম ফুলকপির বাজার কমে গেছে বলে ধারোনা করা হচ্ছে।
4Shares
আরো পড়ুন :  সামর্থ্যহীন কলাকুশলীদের জন্য পরীমণির গরু কোরবানি