গাজীপুরে শ্রমিক বিক্ষোভ ভাংচুর-সড়ক অবরোধ

প্রকাশিত

তুহিন সারোয়ার-  গাজীপুর শ্রীপুর পৌর এলাকার উজিলাব গ্রামে ইস্টিম ওয়্যারস্ লিমিটেড নামক করাখানার শ্রমিকরা বকেয়া বেতনের দাবিতে সড়ক অবরোধ করে। এসময় ক্ষুদ্ধ শ্রমিকরা কারখানার ভেতরে ভাংচুর চালিয়ে প্রায় কয়েক কোটি টাকার ক্ষতি করেছে বলে জানায় কারখানা কর্তৃপক্ষ।সোমবার (০৫ নভেম্বর) সকাল থেকে কর্মবিরতি দিয়ে কারখানার মূল ফটকের সামনে অবস্থান নেয় প্রায় ৭’শত শ্রমিক। পরে কারখানার ভেতরে ঢুকে কিছু সংখ্যাক শ্রমিক কারখানার মেসিন ও গ্লাস ভাংচুর করে।

বেলা তিনটার দিকে পাশের কেওয়া নতুন বাজার এলাকায় জড়ো হয়ে মাওনা-শ্রীপুর সড়ক অবরোধ করে। প্রায় এক ঘন্টা যানচলাচল বন্ধ থাকার পর পুলিশের আশ্বাসে অবরোধ তুলে নেয় শ্রমিকরা।

আরো পড়ুন :  নারায়ণগঞ্জে বন্ধুকে বাঁচাতে গিয়ে নদীতে ঝাঁপ, ২ স্কুলছাত্রের মৃত্যু

শ্রমিকরা জানায়, বকেয়া বেতনের জন্য গত অক্টোবর মাসে দু’দিন কর্মবিরতিসহ বিভিন্ন আন্দোলন করে সেপ্টেম্বর মাসের বকেয়া বেতন দিতে কারখানা কর্তৃপক্ষকে বাধ্য করা হয়।তারা শ্রমিকদের বেতন দেয়ার জন্য ৫ নভেম্বর (সোমবার) বেতন দিবে বলে প্রতিশ্রুতি দেয় । সকালে শ্রমিকরা কারখানায় প্রবেশ করতে দেখে এক গাড়ী পুলিশ লাঠি শোঠা নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে।

তখন শ্রমিকরা বুঝতে পারে গত মাসেও পুলিশ নিয়ে এসে বেতন দেয়নি। এবারও পুলিশ নিয়ে ভয় দেখিয়ে বেতন দিবে না। এর জন্য শ্রমিকরা বকেয়া বেতনের জন্য কর্মবিরতি ঘোষণা দিয়ে সড়ক অবরোধ করে।

শিল্প পুলিশের হোতাপাড়া ফাঁড়ির ইনচার্জ মো.হাবিবুর রহমান জানান, কারখানায় যেহোতু সোমবার বেতন দেয়ার পূর্ব নির্ধারিত সময় ছিল তাঁর কারণে কারখানার নিরাপত্তা দেয়ার জন্য আমরা সকাল থেকেই ওখানে পুলিশ মোতায়ন করা হয়। পুলিশ দেখে শ্রমিকরা ক্ষ্যাপে গেছে এটা ভুল ধারণা। কারখানার মহা-ব্যবস্থাপক (অপারেশন) রাজিব চন্দ্র কুঁরি জানান, দু’মাসের নয় গত সেপ্টেম্বর মাসের পনের দিনে বেতন পাবে শ্রমিকরা। সেই বেতন নিয়ে আমি ও আমার প্রধান শাখার কয়েকজন কর্মকর্তা সকালে কারখানায় আসি।

আরো পড়ুন :  এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা আজ

কিন্তু কিছু বুঝে উঠার আগেই কারখানায় ভাংচুর চালায় শ্রমিকরা। তিনি আরো বলেন, এখন অশান্ত পরিবেশ তাই বেতন দেয়া যাচ্ছে না। পরিবেশ শান্ত হলে শ্রমিকদের বেতন দেয়া হবে।

Shares