মুরাদনগরে মৃত্যুর ১০৬দিনপর রহস্য উদঘাটনে লাশ উত্তোলন করেছে পিবিআই

প্রকাশিত

মুরাদনগর (কুমিল্লা) সংবাদদাতা:কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলায় মৃত্যুর ১০৬দিনপর রহস্য উদঘাটনে লাশ উত্তোলন করেছে পিবিআই।
স্ত্রী সালমা আক্তারের অভিযোগের ভিত্তিতে  মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রায়হান মেহেবুবের নেতৃত্বে সদর উপজেলার দিলালপুর কবরস্থান থেকে লাশ উত্তোলন করে কুমিল্লা পুলিশ ব্যুারো অব ইনভেস্টিগেশন(পিবিআই)। উত্তোলনকৃত লাশ দিলারপুর গ্রামের মৃত আব্দুল জব্বারের ছেলে আলম সরকার(৪৭)।
অভিযোক্ত আব্দুল বাতেন মৃত আলম সরকারের বড় ভাই ও তার দুই ছেলে হাসান ও মামুন।
মামলার অভিযোগ ও মৃত আলমের স্ত্রীর সাথে কথা বলে জানাযায়, ১৪ বছর প্রবাস জীবনের সকল উপার্জন তার বড় ভাই আব্দুল বাতেনের ব্যাংক একাউন্টে পাঠায় আলম। বিদেশ থেকে ফেরৎ এসে সেই টাকার হিসেব চাইলে দুই ভাইয়ের মধ্যে দূরত্ব সৃষ্টি হয়। পরে পৈতৃক জমি ভাগ বাটোয়ারা নিয়েও পারিবারিক দ্বন্দ্বের যেরে মৃত আলম স্ত্রী ও চার কন্যা সন্তান নিয়ে আলাদা বসবাস করছিলেন এবং জীবিকার তাগিদে স্থানীয় বাজারে একটি চায়ের দোকান দেন। গত ৩০ জুলাই সোমবার সকালে তার স্ত্রী সালমা আক্তার দোকানে গিয়ে স্বামীর মৃতদেহ দেখতে পায়। তার পাশে ছেড়া বালিশ শরীরে আঘাতের চি‎হ্ন দেখে সালমা মনে করেন, স্বামীকে হত্যা করা হয়েছে। ফলে সালমা আক্তার ভাশুর আবদুল বাতেন ও তার দুই ছেলে হাসান এবং মামুনের নামে কুমিল্লা আদালতে অভিযোগ দায়ের করেন। আট নং আমুলি আদালতের চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো.ইফরানুর রহমান চৌধুরি বিষয়টি আমলে নিয়ে মৃত্যুর রহস্য উদঘাটনের জন্য কুমিল্লা পুলিশ ব্যুারো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) কে দায়িত্ব দেন। ফলে গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে লাশ উত্তোলন করা হয়।
অভিযোক্ত আব্দুল বতেনের বাড়িতে গিয়ে কাউকে পাওয়া যায়নি এবং তার মুঠোফোন বন্ধ থাকায় এই বিষয়ে বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।
মামলার তদন্ত কর্তা পুলিশের উপ-সহকারী বেলাল আাহমেদ বলেন, ময়নাতদন্তের জন্য লাশ উত্তোলন করেছি। রির্পোটের আলোকেই আমাদের পরবর্তী কর্মসূচি নিব।

Shares
আরো পড়ুন :  চট্টগ্রামে অগ্নিকাণ্ডে শতাধিক ঘর-দোকান পুড়ে ছাই