গাজীপুরের টঙ্গীতে বিদ্যালয় কক্ষে গিয়ে ছাত্রদের মারধর করলো সন্ত্রাসীরা

প্রকাশিত

শেখ রাজীব হাসান আকাশ,গাজীপুরঃ গাজীপুরের টঙ্গীতে বিদ্যালয় কক্ষে প্রবেশ করে ছাত্রদের উপর হামলা চালায় এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনায় মোঃ বিপ্লপ হাসান (১৬) ও মোঃ ফাহিম (১৫) নামে দুই ছাত্র গুরতর আহত হন। গত মঙ্গলবার সন্ধায় ৪৯ ও ৫০ নং ওয়ার্ড বেড়ীবাঁধ রোডে উত্তর দত্তপাড়া টেকবাড়ী এলাকার নবীন কুঁড়ি মর্ডান হাই স্কুলে এ ঘটনা ঘটে। এসময় ছাত্র ছাত্রীরা মোঃ সোহাগ (২৪) এবং শান্ত (২২) নামে দুই সন্ত্রাসীকে চিনতে পারে এবং অন্যরাও এলাকার পরিচিত ও চিহ্নিত সন্ত্রাসী কিন্তু তাদের নাম ছাত্র ছাত্রীদের জানা নাই।

শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বললে জানা যায়, বছরের শেষ পর্যায়ে সকল ক্লাসের ছাত্র ছাত্রীদের নিয়ে অলোচনা চলছিলো হঠাৎ করে ২০-২৫ জনের একটি সন্ত্রাসী দল স্কুলে প্রবেশ করে। এসময় সন্ত্রাসীদের হাতে থাকা লাঠি, ছুরি, চাপাতি ও রামদা দেখে ছাত্র ছাত্রী ও শিক্ষকগণ নিজ নিজ ক্লাসের দরজা বন্ধ করে দেয়। সন্ত্রাসীরা দরজায় লাথি দেয় এবং অকথ্য ভাষায় গালাগাল করতে থাকে। এক পর্যায়ে তারা নবম শ্রেনীর জানালার পাশাপাশি দরজা হওয়ায় জানালা দিয়ে হাত ঢুকিয়ে দরজা খুলে ফেলে এবং মোঃ বিপ্লপ হাসান (১৬) ও মোঃ ফাহিম (১৫) কে মারধর শুরু করে। এসময় ছাত্র ছাত্রীরা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও পরিচালক মোঃ মোসলেহউদ্দীন রাজীব কে ঘটনার বিবরণ জানান এবং তিনি আসার আগ পর্যন্ত অর্থাৎ সন্ত্রাসীরা প্রায় ৩০ মিনিট ওই খানে অবস্থান করে এবং হামলা চালায়। অতঃপর এলাকাবাসীরা এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা মোঃ বিপ্লপ হাসান  ও মোঃ ফাহিমকে ছেরে পালিয়ে যায়। পরে তাদেরকে পাশের একটি ক্লিনিকে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।

আরো পড়ুন :  মাহমুদুর রহমানের ওপর হামলা অনাকাঙ্ক্ষিত: ওবায়দুল কাদের

বিদ্যালয়ের পরিচালক জানান, ঘটনার সময় আমি বিদ্যালয় সংশ্লিষ্ট একটি কাজে বাহিরে ছিলাম। ফোনের মাধ্যমে খবর পেয়ে আমি তাৎক্ষনিক ৯৯৯ নাম্বারে ফোন দেই এবং বিদ্যালয়ে রওনা দেই। এ সময় টঙ্গী পূর্ব থানার এস আই মোশারফ ঘটনাস্থলে এসে কাউকে না পেয়ে চলে যান। পরবর্তীতে ৯৯৯ নাম্বার থেকে পুনরায় ঘটনার বর্তমান অবস্থা জানতে চাইলে তিনি বলেন এ ঘটনায় প্রসাশনের কেউ আমাদের স্কুলে এখনো আসেনি। অতঃপর কিছুক্ষন পর এস আই মোশারফ স্কুলে আসেন এবং অভিবাবক ও আমাদের সাথে কথা বলে একটি অভিযোগ লিখে নিয়ে যান। তবে এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

আরো পড়ুন :  ২০১৮ সালে রাজশাহীতে ২৪ নারী-শিশু হত্যা, ধর্ষণ ৩৩

এলাকাবাসী জানায়, বিদ্যালয়ের ভিতরে প্রবেশ করে ক্লাস রুমে ছাত্রদের উপর হামলা নিতান্তই দুঃখজনক। এবং এমন সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করার পরেও প্রশাসনের এমন ভূমিকা পালন তার চেয়েও দুঃখজনক।

এমতাবস্থায় প্রশাসনের কাছে এলাকাবাসীর প্রশ্নঃ আমরা কোন জায়গায় নিজেকে নিরাপদ ভাবতে পারি।

 

88Shares