গাইবান্ধায় ৩ শত বছরের পুরানো কয়েক কোটি টাকার মুল্যের মূর্তি উদ্ধার

প্রকাশিত

এ,এস,এম,সুমন মন্ডল গাইবান্ধা প্রতিনিধি : গাইবান্ধার সদর উপজেলার বাদিয়াখালী ইউনিয়ন থেকে কয়েক কোটি টাকা মূল্যের পাথরের মুর্তি উদ্ধার করেছে পুলিশ। ২২ জানুয়ারী মঙ্গলবার উপজেলার বাদিয়াখালী ইউনিয়ন থেকে মুর্তিটি উদ্ধার করা হয়। সদর উপজেলার বাদিয়াখালী ইউনিয়নের রামজীবন গ্রামে ফলের ব্যবসায়ী আল আমিন মুর্তির সন্ধান পান। পুলিশ ও ইউনিয়ন পরিষদ সূত্রে জানা যায়, আল আমিনের বাড়ি সদর উপজেলার বাদিয়াখালী ইউনিয়নের রামনাথের ভিটায়। সোমবার দুপরে আল আমিন আলাই নদীতে গোসল করতে যায় চাচাতো ভাই সাব্বিরকে নিয়ে। গোসলের এক পর্যায়ে আল আমিনে পায়ের সাথে লাগে পাথরটি। পরে আল আমিন ও সাব্বির মুর্তিটি তুলে বাড়ি নিয়ে যায়। ফলের ব্যবসায়ী আল আমিন বলেন, এলাকায় মুর্তির কথা ছড়িয়ে পরলে লোকজন ভিড় করতে থাকে আল আমিনের বাড়িতে। উৎসুক জনতা মুর্তির দাম অনেক বেশি হবে এমনটি বলায় আমি মুর্তিটি বাড়িতে রেখে দেই। কিন্তু ঝামেলা থেকে মুক্তি পেতে আমি মঙ্গলবার সকালে বাদিয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাফায়েতুল হক পাভেলের কাছে হস্তান্তর করি। চেয়ারম্যান পুলিশকে খবর দিলে পরিষদ থেকে মুর্তিটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। এ বিষয়ে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খাঁন মো শাহরিয়ার বলেন, বাদিয়াখালীতে একটি কষ্টি পাথর পাওয়া গেছে এমন জল্পনা কল্পনা সৃষ্টি হয় ওই এলাকার মানুষদের মধ্যে। আমরা সোমবার থেকে মুর্তিটি উদ্ধারের চেষ্টা করে মঙ্গলবার তা সম্ভব হয়। মুর্তিটির গায়ে লেখা অনুযায়ী তিনশ বছর আগের। মুর্তিটি দেখে প্রাথমিক ধারনা যাচ্ছে শিবের মুর্তি। মুর্তিটি কষ্টি পাথর কি না তা পরীক্ষার -নিরীক্ষা করা হবে। পরীক্ষা শেষে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
ছবি সংযুক্ত নং ১