যৌন দাসত্ব থেকে দুই তরুণীর মুক্তির গল্প

প্রকাশিত

চীনের ইয়ানজি শহরের আবাসিক এলাকার একটি ভবনের তৃতীয় তলা থেকে অভিনব কায়দায় নিচে নামেন দুই তরুণী। জানা গেছে, তারা বিছানার চাদরকে দড়ি হিসেবে ব্যবহার করে নিচে নামেন।

ওই ভবনের নিচেই তাদের উদ্ধারের জন্য অপেক্ষা করছিলেন উদ্ধারকারীরা। উধ্দারকারীদের একজন তাদের জানান, তাদের হাতে বেশি সময় নেই। তড়িঘড়ি করে সে কারণে সেখান থেকে তারা চলে যান।

ওই দুই তরুণীর একজন মিরা এবং অন্যজন জিউন। তারা দু’জনই উত্তর কোরিয়া থেকে পালিয়ে আসা নারী। ওই দুই তরুণী পাচারকারীদের শিকারে পরিণত হয়েছিলেন।

 

 

মিরাকে গত পাঁচ বছর ধরে যৌন ওয়েব সাইটে ওয়েবক্যামের সামনে যৌনকর্মী হিসাবে কাজ করতে বাধ্য করা হয়। আর অপরজনকে এই কাজে বাধ্য করা হতো গত আট বছর ধরে। ওয়েবক্যামের সামনে তাদের সরাসরি যৌনকর্মে অংশ নিতে হতে অনেক সময়।

তবে ওয়েবক্যামের সামনে যৌন কাজে অংশ নেয়ার বিনিময়ে যে অর্থ উপার্জন হয়, তার কিছুই কখনো ছুঁয়েও দেখতে পারেনি মিরা বা জিউন। প্রথমে পরিচালক রাজি হয়েছিল যে, মোট আয়ের ৩০ শতাংশ তাদের দেয়া হবে। যখন তারা চলে যাবে, তখন এই অর্থ তারা পাবে।

কিন্তু মিরা এবং জিউন ক্রমেই বুঝতে শুরু করেছিল যে, তারা হয়তো কোনো দিনই মুক্তি পাবে না। এজন্য তারা আত্মহত্যার চেষ্টাও করেছে। তবে এখন তারা অনেকটাই  স্বস্তি পেয়েছে।