মেয়েকে ধর্ষণের দায়ে বাবার ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড

প্রকাশিত

কিশোরী মেয়েকে ধর্ষণের দায়ে ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড হয়েছে বাবার। সেই সঙ্গে ১০ হাজার টাকা জরিমানাও করা হয়েছে। অনাদায়ে আরো ছয়মাসের কারাদণ্ড। পাশাপাশি রাজ্য সরকারকে ক্ষতিপূরণ বাবদ ওই নাবালিকাকে সাড়ে চার লাখ টাকা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

শুক্রবার ওই রায় শুনিয়েছেন রানাঘাট আদালতের অতিরিক্ত দায়রা বিচারক শুভ্রদীপ মিত্র। সরকার পক্ষের আইনজীবী অপূর্বকুমার ভদ্র জানান, ওই মামালায় মেয়েটির পরিবারের সদস্য-সহ ১১ জন সাক্ষী ছিলেন। সবার কথা শুনে বিচারক ওই সাজা ঘোষণা করেন।

আরো পড়ুন :  রংপুরের এ্যানঞ্জেলা বিউটি পার্লারে নারীকে দিয়ে অবৈধ কাজের চেষ্টা!

গত বৃহস্পতিবার অভিযুক্তকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়। শুক্রবার রায় ঘোষণা করা হয়েছে। এ ছাড়া শিগগিরই ক্ষতিপূরণ বাবদ রাজ্য সরকারকে সাড়ে চার লাখ টাকা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক। বিচারক বলেন, যার কাছে সুরক্ষিত থাকবে, সেই বাবার কাছেই ধর্ষিত হয়েছে মেয়ে। এই সাজায় আগামী দিনে অনেকে এই কাজ করতে ভয় পাবেন।

সরকারি আইনজীবী জানান, এ বছরের ১৯ জানুয়ারি দুপুর দেড়টা নাগাদ মেয়েটির মা ওষুধ কিনতে দোকানে গিয়েছিলেন। বাড়িতে ছিল তার ১০ বছরের ছোট ছেলে। তাকে দোকানে জিনিস আনতে পাঠিয়ে মেয়েকে ধর্ষণ করেন ওই ব্যক্তি।

আরো পড়ুন :  টঙ্গীতে বস্তি উচ্ছেদের প্রতিবাদে বিক্ষোভ,মানববন্ধন

দোকান থেকে ফিরে এসে বাবার কীর্তি দেখতে পায় ছেলেটি। মা ফিরে এলে তাকেও বিষয়টি জানায়। ছেলের মুখে সব শোনার পর মেয়েটির মা ওই দিন ধানতলা থানায় স্বামীর বিরুদ্ধে মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগ করেন। সেদিনই পুলিশ অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে। সেই থেকে পুলিশি হেফাজতে ছিলেন ওই ব্যক্তি।

7Shares