টঙ্গীর এরশাদনগর এলাকায় পরকীয়া প্রেমের টানে ঘর ছাড়লেন ২ সন্তানের জননী

প্রকাশিত

শেখ রাজীব হাসান আকাশ,চ্যানেল সিক্সঃ গাজীপুর মহানগরীর টঙ্গীর এরশাদ নগর এলাকায় পরকীয়া প্রেমের টানে ঘর ছেড়ে পালালেন ২ সন্তানের জননী। ১ ছেলে ও ১মেয়েকে নিয়ে দীর্ঘ ১০ বছরের সংসার জীবন মোঃ মনির হোসেন (৩৫) ও তাসলিমা আক্তারের (২৫)। সব কিছু ঠিকই ছিলো হঠাৎ করেই বিশ্বাস ঘাতকতার প্রচন্ড ঝড়ে যেন সব কিছু লন্ডভন্ড হয়ে গেল। মনির হোসেন এরশাদ নগর বেরীবাদ এলাকার একজন অতি সাধারণ চায়ের দোকানদার। ব্যাস্ততার মাঝেই মাঝে মধ্যে স্বামীর সঙ্গে দোকানে ব্যাবসায় সময় দিত তাসলিমা। কিছুদিন আগের কথা, তখন এরশাদনগর বেরীবাদ রোডের নির্মাণ কাজ চলছিলো। সেখাঙ্কার অসংখ্য শ্রমিকের মাঝে হেলাল (৩০) ও একজন। কাজের ফাকে দোকানে রোজ ক্রয় বিক্রয়ের মাঝে একটা সময় গভীর বন্ধুত্বের সৃষ্টি হয় হেলাল ও মনিরের আর তা ক্রমন্নয়ে একটা পারিবারিক সম্পর্কে রুপ নেয়। এদিকে হেলাল দোকানের পাশেই টেকবাড়ী এলাকায় একটি বাড়ীতে ব্যাচেলার ভাড়া থাকতেন। খাবারের ঝামেলা হওয়ায় হেলাল মনিরের বাসায় সবসময় খেতে চাইলে মনির সম্মতি জানায় আর এটাই হলো মনিরের সব চাইতে বর ভুল! একটা সময় মনিরের অবর্তমানে তাসলিমা ও মনিরের মাঝে গড়ে উঠে অবৈ্ধ সম্পর্ক। এ বিষয় মনির কিছুটা আচ করতে পারার পরপরই গত ২৩শে ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা ৬ ঘটিকার সময় হেলালের সাথে পালিয়ে যায়।
<p>এ ব্যাপারে জানার জন্য মনিরের সাথে কথা বলতে গেলে দেখা যায় মনির ও তাসলিমার চার বছরের মেয়ে সুরাইয়া ও শিশু ছেলে তানভীর এর আহাজারি… তাদের একটাই কথা আমার মাকে এনে দাও।
<p>এ বিষয়ে মনির জানায়, তাসলিমা যদি এখনো ফিরে আসে আমি তাকে ক্ষমা করে দিবো আমার বাচ্চাদের মুখের দিকে তাকিয়ে আমি সব মেনে নিবো তবুও তুমি ফিরে আসো।
তবে, তাসলিমা চলে যাওয়ায় গত ২৬শে ফেব্রুয়ারি মনির হোসেন টঙ্গীর পূর্ব থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন (জিডি নংঃ ১০৭৫)।
তবে কেউ যদি ছবিতে উল্ল্যেখিত হেলাল ও তাসলিমা আক্তারের খোঁজ পেয়ে থাকেন তবে নিম্নলিখিত নাম্বারে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করা গেল। মোবাইলঃ ০১৯১৪ ০০২ ০৯৪ – ০১৭৫৮ ১২৩ ০০৩।

158Shares
আরো পড়ুন :  বইমেলা শুরু আজ