ডিভোর্স: বিচারকের টাকায় হোটেলে রাত কাটালেন দম্পতি!

প্রকাশিত

নিজেদের মধ্যে বনিবনা হচ্ছিল না। এরই জেরে স্বামীর বিরুদ্ধে নির্যাতনের মামলা করে বসেন স্ত্রী। শুধু এখানেই শেষ নয়, শ্বশুর, দেবর ও স্বামীর বিরুদ্ধে খুনের চেষ্টারও অভিযোগ আনেন তিনি। অবশেষে তাদের ডিভোর্স ঠেকাতে এক অভিনব পদক্ষেপ নিলেন বিচারক। পরামর্শ দিলেন- স্বামী-স্ত্রীকে একসঙ্গে হোটেলে রাত কাটানোর। ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বীরভূম জেলা আদালত এমন রায় দেন। এমনকি হোটেল ভাড়ার টাকা নিজের ব্যক্তিগত তহবিল থেকে দিয়েছেন সেই বিচারক।

নিউজ১৮-এর খবর, দাম্পত্য জীবনের সমস্যা নিয়ে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন স্বামী গৌতম ও স্ত্রী অহনা। মঙ্গলবার এই মামলার শুনানি চলছিল বীরভূম জেলা আদালতে। শুনানির সময়ে আইনজীবী বলেন, এটা পারিবারিক ঝামেলা। দম্পতিকে পরিবারের থেকে আলাদা করে একা সময় কাটানোর সুযোগ দেওয়া উচিত।

আরো পড়ুন :  গাজীপুর মহানগর ছাত্রদলের কমিটি নিয়ে ধুম্রজাল

এরপর আইনজীবীর জেরা শুনে বিচারকের মনে হয়, সমস্যা বা মনোমালিন্য রয়েছে অহনা ও গৌতমের মধ্যে। স্বামী-স্ত্রী একান্তে থাকলে কথা বলে এই সমস্যার সমাধান সম্ভব। এরপর শুনানি শেষে দু’জনকে একত্রে পরিবারের থেকে আলাদা কোনো হোটেলে তিনদিন থাকার নির্দেশ দেন। রায় শুনে হতভম্ব হয়ে যান গৌতম ও অহনা দু’জনেই।

এসময় পেশায় ইলেক্ট্রনিক্স শ্রমিক গৌতম তখন জানান, তিনি খুবই সামান্য আয় করেন। তাতে হোটেলে থাকার বন্দোবস্ত করা সম্ভব নয়। এ কথা শুনে বিচারক নিজেই স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে তাদের হোটেলে থাকার খরচ বহন করার দায়িত্ব নেন এবং আগামী তিনদিন ওই দম্পতিকে হোটেলে থেকে নিজেদের সমস্যা মেটানোর নির্দেশ দেন।

আরো পড়ুন :  আপাতত চলবে ভ্রাম্যমাণ আদালত

কিছুক্ষণ আগে আদালত কক্ষে দাঁড়িয়ে যারা জানিয়ে দিয়েছিলেন কোনোভাবেই তাদের একসঙ্গে থাকা সম্ভব নয়, সেই অহনা-গৌতমই বিচারকের এমন অভিনব প্রস্তাব গ্রহণ করেন। একই সঙ্গে বিচারকের সামনে জানান, নিজেদের সমস্যা মেটানোর উদ্যোগ তারা নেবেন

217Shares