ছাত্রলীগ নেতা হত্যায় শিবির-ছাত্রদলের ৩ জনের যাবজ্জীবন

প্রকাশিত

ডেস্ক নিউজঃ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় স্কুল অ্যান্ড কলেজ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ও স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতা রবিউল ইসলাম রবি হত্যা মামলায় তিনজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল। একই সঙ্গে এ মামলার অপর সাত আসামিকে বেকসুর খালাস দিয়েছে ট্রাইব্যুনাল।

আজ বুধবার দুপুরে রাজশাহীর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক অনুপ কুমার এ রায় ঘোষণা করেন।

রায়ে সাজাপ্রাপ্তরা হলেন- মহানগরীর মেহেরচণ্ডি এলাকার হাসান হকের ছেলে সেতু ইসলাম, বাবু কসাইয়ের ছেলে বাবলা ও বাবলু ড্রাইভারের ছেলে সোহাগ। তারা ছাত্রশিবির ও ছাত্রদলের নেতাকর্মী বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে।

আরো পড়ুন :  বগুড়া আওয়ামী লীগ নেতার এত সম্পদ!

আদালতের বিশেষ পিপি এন্তাজুল হক বলেন, যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ছাড়াও আসামিদের প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ছয় মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। সাজাপ্রাপ্তদের মধ্যে প্রধান আসামি সেতু ইসলাম এখনো পলাতক রয়েছেন। রায় ঘোষণার সময় অপর ৯ আসামি হাজির ছিলেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০১৩ সালের ১৪ এপ্রিল বিকেলে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা মাঠে মেহেরচণ্ডি এলাকার নসু মিয়ার ছেলে রবিউল ইসলাম রবিকে পিটিয়ে কুপিয়ে গুরুত্বর জখম করা হয়। পরে তাকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে রবির মুত্যু হয়। এ ঘটনার পরদিন রবির বড় ভাই শফিকুল ইসলাম বোয়ালিয়া থানায় মেহেরচণ্ডি এলাকার সেতু, বাবলা, সোহাগসহ ১২ জনের নাম উল্লেখ্য করে মামলা দায়ের করেন।

আরো পড়ুন :  পুলিশ কাঁদলেন কমিশনার খুনের বর্ণনা দিতে গিয়ে

বোয়ালিয়া থানার এসআই হাফিজ উদ্দিন মামলার তদন্ত শেষে ২০১৪ সালের ৫ মে ১০ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দেন। গত বছর মামলটি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তর করা হয়। সাক্ষ্য প্রমাণ শেষে আদালত বুধবার রায় ঘোষণা করেন।

Shares