ভাইকে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে নয়ন আমার কাছ থেকে সহি নিয়েছিলো

প্রকাশিত
বরগুনা প্রতিনিধি- আমার ছোট ভাই আবদুল মুঈদ কাফি মিয়া। বরগুনা ক্যালিক্স একাডেমীতে দ্বীতিয় শ্রেনীতে পড়াশুনা, রোল নম্বর-১৮। কাফিকে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে অ¯্ররে মুখে জিম্মি করে নয়ন বন্ড আমার কাছ থেকে একটি সাদা কাগজে সহি নিয়েছিলো। সেই থেকে নয়ন আমাকে তার স্ত্রী দাবী করতো।
শুক্রবার (২৮ জুন) বিকেল সাড়ে ৫ টার দিকে বরগুনা পৌরসভার পুলিশ লাইনের ২ নম্বর ওয়ার্ডের বাবার বাসায় বসে এসব জানালেন নিহত রিফাত শরীফের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি।
আয়েশার খালা রোজী  জানান, মুনা, মিন্নি, মেঘলা, কাফি ওরা চার জন আপন ভাই-বোন। দুই মাস পূর্বে নিহত রিফাতের সাথে মিন্নির পারিবারিক ভাবে বিবাহ সম্পন্ন হয়। যদি নয়নের সাথে মিন্নির বিয়ে হতো তাহলে আমরা কিভাবে বড় অনুষ্ঠান করে বিয়ে দিলাম। বিয়ের কথাটি সম্পূর্ন মিথ্যা।
বরগুনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবির মোহাম্মদ হোসেন  জানান, আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি কোনো ব্যাপারে থানায় অভিযোগ করেনি।
বুধবার (২৬ জুন) সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে বরগুনা সরকারি কলেজ রোডে বসে স্ত্রীর সামনে সন্ত্রাসীরা রিফাত শরীফকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে হত্যা করা হয়।