শঙ্কামুক্ত নন এরশাদ

প্রকাশিত

স্টাফ রিপোর্টার: জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে বলেছেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের বর্তমান শারীরিক অবস্থা গতকালের চেয়ে ২৫ শতাংশ উন্নতি হয়েছে। গত বুধবার রাত পর্যন্ত ১০ শতাংশ উন্নতি করেছিল শারীরিক অবস্থা। তিনি বলেন, চিকিৎসকরা জানিয়েছেন এরশাদ এখনো শঙ্কামুক্ত নয়। তার সংক্রমণ যেন না বেড়ে যায় সেজন্য চিকিৎসকরা নিরলসভাবে চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছেন।
এরশাদের পুরোপুরি সুস্থ হতে একটু সময় লাগবে বলেও জানান, জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি। প্রয়োজন হলে চিকিৎসকদের পরামর্শে উন্নত চিকিৎসা নিশ্চিত করা হবে।
গতকাল  বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর মতিঝিল এজিবি কলোনি কমিউনিটি সেন্টার মিলনায়তনে জাতীয় পার্টি খুলনা ও বরিশাল বিভাগীয় সাংগঠনিক সভায় সভাপতির বক্তৃতাকালে জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি এ কথা বলেন। সভাপতির সূচনা বক্তব্যে জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি বলেন, এরশাদের অবর্তমানে জাতীয় পার্টি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের নির্দেশনা এবং গঠনতন্ত্র মোতাবেক চলবে। তিনি নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বলেন, জাতীয় পার্টি একটি সম্ভাবনাময় দল। আগামীতে উজ্জ্বল সম্ভাবনা রয়েছে জাতীয় পার্টির। তাই জাতীয় পার্টির নেতা-কর্মীদের হতাশ হলে চলবে না। দলকে আরো শক্তিশালী করতে নেতাকর্মীদের আহ্বানও জানান তিনি।
এ প্রসঙ্গে গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি আরো বলেন, জাতীয় পার্টিসহ তিনটি বড় রাজনৈকি দল নিজস্ব প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে। এরমধ্যে সব চেয়ে জনপ্রিয় এবং সম্ভাবনাময় দল জাতীয় পার্টি। জাতীয় পার্টি যেদিকে যায় ক্ষমতাও সেদিকেই যায়। তাই জাতীয় পার্টিকে দুর্বল করেতেই পার্টি চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের নামে একাধিক মামলা দেয়া হয়েছিল।
তিনি বলেন, আমরা যদি দলকে শক্তিশালী করতে পারি, গণমানুষের  প্রত্যাশা অনুযায়ী কর্মসূচি দিয়ে তা বাস্তবায়ন করতে পারি তাহলে জাতীয় পার্টি আগামীতে রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব নিতে পারবে। নেতাকর্মীদের উদ্দেশে গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি বলেন, জাতীয় পার্টিতে আর মনোনয়ন বানিজ্য চলবে না, কমিটি পেতে লবিং করতে হবে না।  প্রতিটি কমিটি কাউন্সিলের মাধ্যমে নির্বাচিত করা হবে। ভাড়া করা লোক দিয়ে কোনো কাউন্সিল হবে না, বন্ধ করা হবে পদোন্নতি বাণিজ্য। জাতীয় পার্টিকে একটি সুশৃঙ্খল দলে পরিণত করা হবে, কোনো বিশৃঙ্খা বরদাশত করা হবে না।
খুলনা ও বরিশাল বিভাগীয় সাংগঠনিক সভায় পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, মহাজোটে জাতীয় পার্টির ৫৭টি আসনে নির্বাচন করার কথা ছিল। কিন্তু আমাদের নেতৃত্ব পরিবর্তন ও কোন্দলের সুযোগ নিয়েছে আওয়ামী লীগ। তাই সংসদে জাতীয় পার্টির মাত্র ২২টি আসন। তিনি আরো বলেন ১৯৯৬ সালে জাতীয় পার্টির সমর্থন নিয়ে আওয়ামী লীগ ২১ বছর পওে ক্ষমতার স্বাদ পেয়ে, জাতীয় পার্টিও ক্ষতি করেছে। বিভিন্ন এলাকায় জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীদের ওপর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা মামলা হামলা করেছে। এখন থেকে আর ছাড় দেয়া হবে না, যেখানেই আওয়ামী লীগ কর্মীরা হামলা করবে সেখানেই  প্রতিরোধ করা হবে। গণতান্ত্রিক এবং আইনগত ভাবে প্রতিটি হামলার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
দলকে আরো শক্তিশালী করে সরকারি দলের হামলার সমুচিত জবাব দেয়া হবে বলেও জানান, পার্টির মহাসচিব রাঙ্গা। আলোচনায় অংশ নেন প্রেসিডিয়াম সদস্য  সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, গোলাম কিবরিয়া টিপু, সাইফুদ্দিন আহমেদ মিলন, মিজানুর রহমান, কাজী মামুনুর রশিদ, জহিরুল আলম  রুবেল, অধ্যাপক মহসিন-উল ইসলাম হাবুল, এসএম রহমান পারভেজ, ইকবাল হোসেন তাপস, শফিকুল ইসলাম মধু, সোমনাথ দে, সরু চৌধুরী, জাহাঙ্গীর হোসেন মানিক।