বাঘাইছড়িতে বন্যার্তদের মাঝে  উপজেলা প্রশাসনের ত্রাণ বিতরন 

প্রকাশিত

Sharing is caring!

জগৎ দাশ বাঘাইছড়ি প্রতিনিধিঃ রাঙামাটির বাঘাইছড়িতে টানা বৃষ্টির ফলে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।এর ফলে মানুষের জীবনে নানা সংকট দেখা দিয়েছে।উপজেলার পৌর এলাকা সহ প্রায় ৫ শতাধিক পরিবার পানি বন্ধি হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পানি বন্ধি সকলকে নিরাপদ স্থানে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্টানে আশ্রয় কেন্দ্রে থাকার ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। এর আগে টানা বর্ষনে পানি বন্ধি ও ঝুঁকিপূর্ণ বসবাসরত  সকলকে নিরাপদ স্থানে ও প্রশাসনের আশ্রয় কেন্দ্রে আসার জন্য মাইকিং করা হয়েছে। উপজেলা সদর হতে রুপকারী,বংগতলী, খেরারমারা,সাজেক বাঘাইহাটে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।বানবাসিদের সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে স্থানিয় সেচ্ছাসেবী সংগঠণ হৃদয়ে বাঘাইছড়ি ও রেড ক্রিসেন্ট।   এদিকে আশ্রয় কেন্দ্রে বসবাস করা বানভাসীদের ১১ই জুলাই বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় বিভিন্ন আশ্রয় কেন্দ্রগুলো পরিদর্শন সহ  ত্রাণ সামগ্রী  বিতরণ করেছেন উপজেলা প্রশাসন।  টানা পাচঁদিনের মুসলদারি হালকা ও মাঝারী  বৃষ্টির ফলে বাঘাইছড়ির বিভিন্ন গ্রামের পাঁচ শতাদিক পরিবার পানি বন্ধি হয়ে পড়ার খবর পাওয়া গেছে  । উপজেলা প্রশাসন বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সরকারি কার্যালয় গুলোর মধ্যে ২৩টি আশ্রয় কেন্দ্র ঘোষণা করে গতকাল মাইকিং করে সবাইকে নিরাপদে আশ্রয় কেন্দ্রে যাওয়ার অনুরোধ করে।  ১৪টি আশ্রয় কেন্দ্রে প্রায় তিন শতাদিক লোক আশ্রয় নেয় অনেকেই উচু স্থানে অবস্থানরত নিকটবর্তী  আত্মীয় স্বজনের বাড়িতে আশ্রয় নেয়।  বাঘাইছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আহসান হাবীব জিতুের নেতৃত্বে  ত্রাণ সামগ্রী  বিতরণ কালে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন,  বাঘাইছড়ি উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল কাইয়ুম, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সাগরিকা চাকমা, বাঘাইছড়ি পৌরসভার মেয়র জাফর আলী খান,উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আলী হোসেন, উপজেলা যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক জগৎ দাশ  সহ বিভিন্ন গনমাধ্যমের সংবাদকর্মী ও ডিজিএফআই, এফআইও  কর্মীবৃন্দুগন।বানভাসিদের মাঝে যেসব ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ হয় এরমধ্যে রয়েছে চাল ৫ কেজি, ডাল ১কেজি, লবন ১কেজি, সয়াবিন তৈল,১কেজি,খেজুর ১কেজি, মোমবাতি,দিয়াশেলাই, সহ শুকনা খাবার রয়েছে।  উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আহসান হাবীব জিতু জানান, প্রাথমিকভাবে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র দেওয়া হয়েছে। আমাদের যথেষ্ট পরিমান ত্রাণ সামগ্রী রয়েছে। আমরা চাই কেউ বন্যা কবলিত কেউ যেন ত্রাণ সামগ্রী থেকে বঞ্চিত না হয় সেই ব্যাপার স্থানিয় সহ জনপ্রতিনিধিদের সজাগ দৃষ্টি রাখার অনুরোধ করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আহসান হাবিব জিতু।এদিকে  পানিবন্ধিদের চলাচল ও উদ্ধার কাজে ব্যাবহারের জন্য ইন্জিল চালিত টেম্পু বোট,নৌকার পর্যাপ্ত ব্যবস্থা রয়েছে বলে  জানান তিনি।অপরদিকে আংশিক পানিবন্ধি ইউনিয়ন রুপকারি, বংগলতলী,খেদারমারা,সারোয়াতলী, সাজেক বাঘাইহাট এলাকায় স্থানিয় ইউপি চেয়ারম্যানের মাধ্যমে ত্রাণ সামগ্রী প্রেরণ ও বিতরণ অব্যাহত রেখেছে বলে সংশ্লিষ্ট মাধ্যম নিশ্চিত করেছে।এদিকে বন্যার পরিস্থিতি স্বাভাবিক পর্যায়ে যেতে দেখা যাচ্ছে।এছাড়া পানিবন্ধি মানুষেরা যাতে কোন ক্রমে ডায়রিয়া বা পানিবাহিত কোন রোগে আক্রান্ত না হয় সেই ব্যাপারে বাঘাইছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পক্ষ থেকে যথাযত ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।