নাটোরে সরকারি বিধি লঙ্ঘন করে শিক্ষক নিয়োগের অভিযোগ

প্রকাশিত

নাটোর প্রতিনিধি:-
নাটোরের আহমেদপুর এম.এইচ উচ্চ বিদ্যালয়ে সরকারি বিধি লঙ্ঘন করে চার শিক্ষক নিয়োগের অভিযোগ উঠেছে। ২০১৫ সালের আগে সবার অগোচরে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলেও সম্প্রতি তা জানাজানি হয়। এ বিষয়ে শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এবং জেলা শিক্ষা অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন স্থানীয় দুই জনপ্রতিনিধি।

আহমেদপুর এম.এইচ উচ্চ বিদ্যালয়। নাটোরের ঐতিহ্যবাহী একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। সম্প্রতি অভিযোগ উঠেছে, এই বিদ্যালয়ে নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে চার শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এবং জেলা শিক্ষা অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগে বলা হয়, ২০১৫ সালে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নিয়োগ প্রক্রিয়া চলে যায় ‘বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ, (এনটিআরসিএ) এর অধীনে। এরপরেও গোপনে বিধি বর্হিভূতভাবে পেছনের তারিখের এক ভুয়া বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে চার শিক্ষক নিয়োগ দেয় আহমেদপুর এম.এইচ উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি স্থানীয় সংসদ সদস্য আব্দুল কুদ্দুস এবং তৎকালীন প্রধান শিক্ষক শুধাংসু সরকার।

২০১৮ সালের জুন মাসে স্কুলের প্রধান শিক্ষক শুধাংসু সরকার অবসরে চলে যান। এরপর রবিউল ইসলাম নামে একজন প্রধান শিক্ষক হিসাবে যোগদান করেন। তার আকষ্মিক মৃত্যুর পর গত ১৪ জুন বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক আকবর আলী প্রধান শিক্ষক হিসাবে নতুন দায়িত্বভার গ্রহন করেন। এর ঠিক পরের দিন ১৫ জুন দীর্ঘ ৪ বছর অনুপস্থিত থাকার পর চার শিক্ষক বিদ্যালয়ে আসা শুরু করেন। তবে কিভাবে নিয়োগ হলো, কেনই বা দীর্ঘ চার বছর পর বিদ্যালয়ে আগমন তার কোনই সদুত্তর নেই, কারও কাছে।

 

 

এমনকি সাবেক এবং বর্তমান প্রধান শিক্ষকও নিয়োগ সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে ক্যামেরার সামনে কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন। নিয়োগ সংক্রান্ত কোন কাগজপত্র বিদ্যালয়ে নেই বলেও জানান বর্তমান প্রধান শিক্ষক।

এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের সভাপতি, স্থানীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুস জানান, নিয়ম মেনেই নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পাদন হয়েছে। অভিযোগকারীদের আদালতের দারস্থ হবার পরামর্শ দেন তিনি।

লিখিত অভিযোগের কথা স্বীকার করে জেলা শিক্ষা অফিসার জানান, তদন্ত করে চার শিক্ষক নিয়োগে অনিয়মের বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।