বদলে গেল কাশ্মীরের মানচিত্র

প্রকাশিত

নয়াদিল্লি প্রতিনিধি-

কাশ্মীরকে বিশেষ মর্যাদা দেওয়া সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বিলোপ করেছে ভারত সরকার। সেই সঙ্গে স্বায়ত্তশাসিত এই রাজ্যটিকে ভেঙে কেন্দ্রীয় সরকার শাসিত জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখ নামের দুই রাজ্য তৈরি করা হয়েছে। অবশ্য রাজ্যের মর্যাদাও হারাতে পারে কাশ্মীর। এই ৩৭০ অনুচ্ছেদের ওপর ভিত্তি করেই ভারতের সঙ্গে অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল কাশ্মীর। এতে জম্মু ও কাশ্মীরকে অন্য যে কোনো ভারতীয় রাজ্যের চেয়ে বেশি স্বায়ত্তশাসন ভোগ করার অধিকার দেওয়া হয়েছিল। তাই সরকারি এই পদক্ষেপের পর সেখানে তীব্র প্রতিক্রিয়ার আশঙ্কা হচ্ছে। গতকাল এর সূচনা দেখা গেছে ভারতের আইনসভা লোকসভায়। হয়েছে তীব্র বাকবিত া ও হট্টগোল। অবশ্য ক্ষমতাসীন বিজেপি দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক এজেন্ডা বাস্তবায়ন করে মিষ্টি বিতরণ করেছে কর্মীদের মাঝে।

 

 

বিশ্লেষকরা জানান, এতদিন ৩৭০ অনুচ্ছেদের সুবাদে কাশ্মীরের স্থায়ী বাসিন্দারাই শুধু সেখানে বৈধভাবে জমি কিনতে পারতেন, সরকারি চাকরি করার সুযোগ পেতেন এবং সেখানে ব্যবসা পরিচালনা করতে পারতেন। এই ৩৭০ অনুচ্ছেদের সুবাদে এতদিন জম্মু ও কাশ্মীরের নিজস্ব সংবিধান ও একটি আলাদা পতাকার স্বাধীনতা দেওয়া ছিল। ভারতের সংসদের উভয় কক্ষ ভবিষ্যতে এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে। পররাষ্ট্র, অর্থ ও প্রতিরক্ষা বিষয়টি এতদিন কেন্দ্রীয় সরকারের হাতে ছিল। এখনো তাই থাকবে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব এতদিন ছিল রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর হাতে। কিন্তু নতুন ব্যবস্থায় রাজ্যটিতে কেন্দ্রের সরাসরি শাসনের প্রস্তাব রাখা হয়েছে। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রতিনিধি হিসেবে রাজ্যটি পরিচালনা করবেন একজন লেফটেন্যান্ট গভর্নর। জম্মু ও কাশ্মীরের রাজ্য বিধানসভা গত কয়েক দশক ধরে কেন্দ্রের যেসব আইনের অনুমোদন করেছে, সেগুলো এখন সরাসরি কার্যকর হবে। ভারতের সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্তগুলো এখন এই রাজ্যের জন্য সরাসরিভাবে প্রযোজ্য হবে। এর বাইরে ভারতের দ-বিধি কিংবা স্থানীয় রণবীর পেনাল কোডের ভবিষ্যৎ নিয়েও কেন্দ্রীয় সরকার কিংবা সংসদকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। স্থানীয় পঞ্চায়েত প্রথাও থাকবে কি না, সেটার প্রশ্নেও সিদ্ধান্ত নেবে ওই দুটি প্রতিষ্ঠান। ভারতীয় গণমাধ্যমগুলোর তথ্য অনুসারে, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ সোমবার সকালে রাজ্যসভায় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ রদ করার সিদ্ধান্ত ঘোষণার জন্য দাঁড়ালে বিরোধী দলগুলোর প্রতিনিধিরা তুমুল হট্টগোল শুরু করেন। চরম বাকবিত ায় কয়েক মিনিটের জন্য মুলতবি হয়ে যায় অধিবেশন। পরে ফের অধিবেশন শুরু হলে হট্টগোলের মধ্যেই রাষ্ট্রপতির আদেশ পড়ে শোনান ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেন, ভারতের রাষ্ট্রপতির এই আদেশ তাৎক্ষণিকভাবে কার্যকর হবে। এই সিদ্ধান্ত ঘোষণার আগে সকালে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার এক বৈঠকে বিস্তারিত আলোচনা হয়। মন্ত্রিসভার ওই বৈঠক শুরু হওয়ার আগে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে একান্ত বৈঠক করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। আগের দিন রবিবার রাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক করেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা, গোয়েন্দা প্রধান ও রিসার্চ অ্যান্ড অ্যানালিটিক্যাল উইংয়ের প্রধানদের সঙ্গে। পরে গভীর রাতে গৃহবন্দী করা হয় রাজ্যের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ফারুক-ওমর আবদুল্লাহ, মেহবুবা মুফতি, সাজ্জাদ লোনসহ উপত্যকার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ নেতাকে। বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয় ইন্টারনেটসহ বিভিন্ন যোগাযোগব্যবস্থা। জায়গায় জায়গায় জারি করা হয় ১৪৪ ধারা ও কারফিউ। এদিকে গতরাতে সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ওমর ফারুক ও মেহবুবা মুফতিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অবশ্য শুধু গতকালের ঘটনাপ্রবাহই নয় ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের প্রস্তুতি শুরু হয়েছে এক সপ্তাহের বেশি সময় আগে। গত ২৭ জুলাই ১০০ কোম্পানি সশস্ত্র বাহিনী পাঠানো হয় কাশ্মীরে। পরের দিনই রাজ্যের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি কেন্দ্রীয় সরকারকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, রাজ্যের বিশেষ মর্যাদা নষ্ট করে দেওয়া হলে তা দেশের পক্ষে অমঙ্গলজনক হবে। গত ২৯ জুলাই জম্মু-কাশ্মীর পুলিশের পক্ষ থেকে রাজ্যের সব মসজিদ ও তাদের পরিচালন সমিতি সম্পর্কে রিপোর্ট তলব করা হয়। সেদিন থেকেই রটে যায়, কেন্দ্র ৩৭০ ও ৩৫ (ক) ধারা বাতিল করার রাস্তায় হাঁটছে। পরের দিন ৩০ জুলাই রাজ্যপাল সত্যপাল মালিক এক বিবৃতিতে রাজ্যের মানুষকে গুজবে কান না দিতে অনুরোধ করেন। গত ৩১ জুলাই মেহবুবা মুফতি কুলগাম, সোপিয়ান ও পুলওয়ামা জেলায় গিয়ে বিভিন্ন সভায় ৩৫ (ক) ধারা ব্যাখ্যা করেন। এই ঘটনা জানাজানি হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই রাজ্যের ভারপ্রাপ্ত বিজেপির সর্বভারতীয় সম্পাদক রাম মাধব সমালোচনা করে বলেন, এভাবে মানুষের মনে ভয় ঢোকানো উচিত নয়। ১ আগস্ট প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে দেখা করেন ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতা ফারুক ও ওমর আবদুল্লাহ। তারা প্রধানমন্ত্রীকে বলেন, ৩৫ (ক) ধারা বাতিল করে দিলে গোটা উপত্যকায় তা বিরূপ প্রতিক্রিয়া ফেলবে। সেদিনই ১০ হাজার বাড়তি সেনা কাশ্মীরে পাঠানো হয়। ২ আগস্ট বাতিল করে দেওয়া হয় অমরনাথযাত্রা। সব পর্যটককে দ্রুত উপত্যকা ছেড়ে চলে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। সে জন্য রাজ্য ও কেন্দ্র সরকার বাস, ট্রেন ও বিমানের বিশেষ ব্যবস্থা করে। এরই মধ্যে ৩ আগস্ট নিয়ন্ত্রণরেখায় পাঁচজন পাকিস্তানি নিহত হন। ভারত সরকারে এই সিদ্ধান্তের পরিণাম কী হবে, এখনই তা বোঝা যাচ্ছে না। কারণ, গোটা উপত্যকা এই মুহূর্তে থমথমে। ইতিমধ্যেই অধিক সংখ্যক মানুষের জমায়েত এবং জনসভা নিষিদ্ধ করা হয়েছে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে। বাসিন্দাদের দেখা যায়, দ্রুত দোকানবাজারে ভিড় করে প্রয়োজনীয় সামগ্রী মজুদ করতে। সরকারের উদ্দেশ্যকে জম্মু ও কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি অশুভ বলে বর্ণনা করে জানান, সরকার চায় জম্মু ও কাশ্মীরের জনতত্ত্বই বদলে দিতে। এখন থেকে জম্মু ও কাশ্মীর আর রাজ্য রইল না। তাকে পুনর্গঠিত করা হবে। মেহবুবা বলেন, ভারতীয় গণতন্ত্রের আজ সবচেয়ে কালো দিন। ১৯৪৭ সালে দুই দেশের তত্ত্ব নাকচ করা ও ভারতের সঙ্গে থাকার জম্মু ও কাশ্মীরের নেতৃত্বের সিদ্ধান্তের ফলই এটা। টুইটে মেহবুবা লেখেন, ‘নিশ্চিত নই কবে আমি যোগাযোগ করতে পারব। এই ভারতকেই কি আমাদের মেনে নিতে হবে?’ অন্যদিকে, বিরোধী কংগ্রেস নেতা পি চিদাম্বরম জানান, সরকার যা করেছে, তা দেশ ও গণতন্ত্রের পক্ষে চরম বিপজ্জনক। এই সিদ্ধান্ত দেশকে টুকরো টুকরো করে দেওয়ার প্রথম পদক্ষেপ। ইচ্ছে করলেই সরকার এখন যে কোনো রাজ্যকে তার ইচ্ছেমতো ভেঙে টুকরো টুকরো করে দিতে পারে। দেশের পক্ষে এটা প্রকৃত কালো দিন। বিজেপির শরিক সংযুক্ত জনতা দল এই সিদ্ধান্তে শরিক হয়নি। দলের নেতা কে সি ত্যাগী বলেছেন, তারা এই সিদ্ধান্তের বিরোধী। এটা এনডিএরও এজেন্ডা নয়। অন্য রাজনৈতিক দল থেকে বিজেপি নিজেদের আলাদা দাবি করে এসেছে বরাবর। তিনটি বিষয়ে তারা কখনো তাদের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি থেকে সরেনি। ৩৭০ ধারা বাতিল, সারা দেশে অভিন্ন দেওয়ানি বিধির প্রচলন ও অযোধ্যায় বাবরি মসজিদের জায়গায় রামমন্দির প্রতিষ্ঠা। দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় এসে জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ অধিকার বাতিল করে দিয়ে তিন লক্ষ্যের একটি বিজেপি পূরণ করল। গৃহবন্দীর পর গ্রেফতার : রবিবার সন্ধ্যায় গৃহবন্দী করা হয়েছিল জম্মু কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি এবং ওমর আবদুল্লাকে। সোমবার তাঁদের গ্রেফতার করা হয়েছে। শ্রীনগরের বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে সরকারি গেস্ট হাউসে নিয়ে যাওয়া হয় মেহবুবা মুফতিকে। ওমর আবদুল্লা ও সাজিদ লোনের মতো উপত্যকার অন্যান্য নেতাদেরও একইভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে। গতকাল সকালে রাজ্যটির বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার করা নিয়ে টুইট করেছিলেন তারা। গত বছরের জুনে জম্মু কাশ্মীরে মেহবুবা মুফতির পিপলস ডেমোক্র্যাটিক পার্টি এবং বিজেপির জোট সরকারের অবসান হয়। গত সপ্তাহে জম্মু ও কাশ্মীরে সেনা মোতায়েন করার পর থেকেই সরব হন মেহবুবা মুফতি। সকালে গৃহবন্দী অবস্থায় টুইট করেছিলেন কঠোর ভাষায়।

 অন্যদিকে, সরকারের সিদ্ধান্তকে আদালতে যাওয়া হতে পারে, বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ওমর আবদুল্লা। সকালে অমিত শাহের ঘোষণার পরেই, ওমর আবদুল্লা বলেন, ‘৩৭০ এবং ৩৫এ ধারার অবলুপ্তি রাজ্যের স্বাভাবিক বিষয় নিয়ে প্রশ্ন তোলে, কারণ, ধারায় বিবৃত করা শর্ত অনুযায়ী, এটা করা হয়েছিল। এই সিদ্ধান্ত একতরফা, অবৈধ এবং অসাংবিধানিক, এবং ন্যাশনাল কনফারেন্স একে চ্যালেঞ্জ জানাবে। সামনে বড় এবং কঠিন লড়াই’।