ছিনিয়ে নেওয়া সেই আসামি বন্দুকযুদ্ধে নিহত।

প্রকাশিত

গোবিন্দগঞ্জ প্রতিনিধি –
গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার দরবস্ত ইউনিয়নের বিশ্বনাথপুর গ্রামের মৃত নুরু মিয়ার পুত্র কথিত জ্বীনের বাদশার প্রতারক চক্রের গডফাদার ও অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী চিনু মিয়া(৩৮) কথিত বন্দুক যুদ্ধে নিহত হয়েছেন। গোবিন্দগঞ্জ থানা পুলিশ জানিয়েছেন আজ ৯ আগষ্ট ভোর রাতে পুলিশের সাথে বন্দুক যুদ্ধে ১৮টি মামলার পলাতক আসামী চিনু মিয়া নিহত হয়েছে। ঘটনার বর্ণনায় পুলিশ জানিয়েছে গত ৭ আগষ্ট বুধবার দিনগত রাত  আনুমানিক ৮ টার দিকে ১৮ টি মামলার পলাতক ওয়ারেন্টভুক্ত আসামী চিনু মিয়াকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিশ্বনাথপুর গ্রাম হতে আটক করে থানায় নিয়ে আসার পথে চিনু মিয়ার সহযোগীরা এসময় পুলিশের উপর হামলা করে হাতকড়া পড়া অবস্থায় আসামী চিনু মিয়া কে ছিনিয়ে নেয়।
এরপর থেকে চিনু মিয়াকে খুঁজতে থাকে পুলিশ এরি ধারাবাহিকতায় আজ ৯ আগষ্ট রাত আনুমানিক ৪টার দিকে পলাতক আসামী চিনু মিয়াকে পুনরায় বিশ্বনাথপুর গ্রামে গ্রেফতার করতে গেলে চিনুসহ তার সহযোগী সন্ত্রাসীরা পুলিশকে লক্ষ করে গুলি চালায়। পুলিশও পাল্টা গুলি চালালে দুইপক্ষে মধ্যে বন্দুক যুদ্ধ শুরু হয়। এরপর সন্ত্রাসীরা পালিয়ে গেলে পুলিশ সেখান থেকে একটি পিস্তলসহ দেশীয় অস্ত্র এবং চিনু মিয়ার লাশ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় ৩ পুলিশ সদস্য ও আহত হয়।
এদিকে চিনু মিয়ার মৃত্যুতে এলাকাবাসীর মাঝে স্বস্তি নেমে এসেছে। এলাকাবাসী জানিয়েছেন চিনু মিয়া এক আতঙ্কের নাম। চিনুর এক চোখ অন্ধ হলেও অপর চোখে ভালোভাবে দেখতে পান এবং এক চোখ দিয়ে দেখেই সে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালাতো।সে সব সময় অবৈধ  অস্ত্র বহন করতো এবং এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি করতো।
গোবিন্দগঞ্জ পুলিশের ইনচার্জ মেহেদী হাসান মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে  জানিয়েছেন চিনুর নামে গোবিন্দগঞ্জ থানায় জ্বীনের বাদশা সেজে প্রতারণা,ধর্ষণ, জবর দখল ও অবৈধ অস্ত্র বহনসহ নানা অভিযোগে দেড় ডজন মামলা ও বেশ কয়েকটি মামলার ওয়ারেন্ট ছিল এর ভিত্তিতে তাকে গ্রেফতার করতে গেলে গোবিন্দগঞ্জ পুলিশের সাথে বন্দুক যুদ্ধ বাঁধে এবং সে যুদ্ধেই নিহত হয়।