ফরিদপুরে ডেঙ্গু জ্বরে মসজিদের খাদেমের মৃত্যু

প্রকাশিত

মাহবুব হোসেন পিয়াল,ফরিদপুর-

ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মসজিদের খাদেমের মৃত্যু। আজ সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মৃত্যুবরণকারী ওই রোগীর নাম শেখ মোঃ দেলোয়ার হোসেন (৩৫)। ফরিদপুর সদর উপজেলার নর্থচ্যানেল ইউনিয়নের গোলডাঙ্গীচর এলাকার শেখ শফিউদ্দিনের ছেলে।  তিনি শহরের পূর্বখাবাসপুর মসজিদের খাদেম হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

নিহত দেলোয়ারের পারিবারীক সূত্রে জানায়, গত চারদিন আগে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে দেলোয়ার ফরিদপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হয়। গতকাল রোববার তাকে সদর হাসপাতাল থেকে ডিসচার্জ করে দিলে সন্ধার দিকে তিনি পূর্ব খাবাসপুরস্থ বাসায় যান। সেখানে রাতে অসুস্থ্য হয়ে পড়লে তাকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

 

 

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক কামদা প্রসাদ সাহা বলেন, দেলোয়ার শেখ গত ১৮ আগস্ট ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে সদর হাসপাতাল থেকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পুরুষ মেডিসিন ওয়ার্ডে ভর্তি হন।

এদিকে, দেলোয়ার শেখকে দিয়ে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ছয় রোগীর মৃত্যু হলো। গত ২৪ ঘন্টায় ফরিদপুরের বিভিন্ন হাসপাতালে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ৫৭ জন ভর্তি হয়েছে। এখন পর্যন্ত ফরিদপুরের এ রোগে ভর্তি রয়েছে ৩৪৬ জন রোগী।

দেখা হবে হাশরের ময়দানে:

দেলোয়ারের দু’টি সন্তান রয়েছে। ১ বছর বয়সী ছোট ছেলে শেখ সাফওয়ানও পিতার সাথে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়। তার অবস্থা বর্তমানে উন্নতির দিকে। দেলোয়ারকে হারিয়ে তার পরিবারে আহাজারি চলছে। তার বাসায় গিয়ে দেখা যায়, তার ৮ বছর বয়সী হাফেজী পড়–য়া বড় ছেলে শেখ সালমান কান্নাজড়িত কন্ঠে মাকে বলছে জানাযার দোয়া শিখিয়ে দেয়ার জন্য। পিতার মৃতদেহ দেখে সে কান্নায় বেঙে পড়ে। পাশেই দেলোয়ারের বাবা শফিউদ্দিন বাকরুদ্ধ। দেলোয়ারের স্ত্রী শিল্পী বেগম এসময় আহাজারী করতে করতে বলেন, তার স্বামী তাকে বলেছিলো যদি তোমার আগে আমার মৃত্যু হয় তবে আমার মৃতদেহের কপালে তিনটি চুমু দিবে। ইনশাআল্লাহ আমাদের আবার দেখা হবে হাশরের ময়দানে। দেলোয়ারের বৃদ্ধা মা ও শ্বাশুড়ি সহ পরিবারের সকলেই এসময় কান্নায় ভেঙে পরেন।