জগন্নাথপুরে সালেহ আহমদের উদ্যোগে দেশে-বিদেশে শতশত জনতার কর্ম-সংস্থান

প্রকাশিত

জগন্নাথপুর প্রতিনিধি-
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার সৈয়দপুর-শাহারপাড়া ইউনিয়নের সৈয়দপুর গ্রামের মৃত হাজী আছাব আলী মেম্বারের ছেলে যুক্তরাজ্যের সান্ডারল্যান্ড আ.লীগের উপদেষ্টা, ব্যবসায়ী ও সৈয়দপুর-শাহারপাড়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্ভাব্য সভাপতি প্রার্থী সালেহ আহমদ ছোট মিয়া এলাকার উন্নয়নে অবদান রেখে চলেছেন। এতে ব্যবসায়ী, মুসল্লি ও পথচারী জনতা উপকৃত হচ্ছেন।
জানাযায়, সৈয়দপুর বাজারের পূর্ব পাড়ের স্থানীয়রা জানান, সালেহ আহমদ ছোট মিয়া একজন ব্যক্তি নয়, তিনি একটি প্রতিষ্ঠান। যাঁকে ঘিরে দেশে-বিদেশে প্রায় ৪ শতাধিক মানুষের কর্ম-সংস্থান হয়েছে। এছাড়া এলাকার সার্বিক উন্নয়নের ধারাবাহিক ভাবে অবদান রেখে চলেছেন।
সালেহ আহমদের ছোট মিয়ার উদ্যোগে প্রায় ৫০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে সৈয়দপুর বাজারে দ্বিতীয় তলা বিশিষ্ট বাইতুল মামুর জামে মসজিদ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। যদিও মসজিদের সম্পত্তি ওয়াক্ফ করে দেয়া হয়। মসজিদটি পরিচালনার জন্য ৫টি দোকান রকম মার্কেট প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া বাজারের কয়েকটি ফুটপাতের দোকানের ব্যবসায়ীরা মসজিদে কিছু টাকা দিয়ে সহযোগিতা করছেন। মসজিদের মুসল্লিরা জানান, বাজারে এ মসজিদটি প্রতিষ্ঠিত হওয়ায় আমাদের জন্য অনেক সুবিধা হয়েছে।
সালেহ আহমদ ছোট মিয়া প্রায় ৮ লক্ষ টাকা ব্যয়ে পথচারী জনতাদের সুবিধার্থে সৈয়দপুর বাজারে একটি পাকা পাবলিক টয়লেট নির্মাণ করে দিয়েছেন। টয়লেটটি পরিছন্ন রাখার জন্য ২টি দোকানের ভাড়া প্রদান করা হয়। আরো ২ লক্ষ টাকা ব্যয়ে সৈয়দ বাজারের নদী পাড়ে একটি পাকা ঘাট তৈরি করে দেয়া হয়। বাজারের ব্যবসায়ী ও জনতাদের জন্য সুপেয় পানির ব্যবস্থা হিসেবে স্থাপন করা হয় গভীর নলকূপ। এছাড়া ১০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে বাজারে একটি যাত্রী ছাউনি নির্মাণের কাজ চলছে।
সৈয়দপুর বাজারের পূর্ব পাড়ের ব্যবসায়ীরা জানান, বাজারের অধিকাংশ জায়গা জুড়ে সালেহ আহমদ ছোট মিয়ার মালিকানাধীন হাজী আছাব আলী মার্কেট রয়েছে। মার্কেটে প্রায় ২৫০টি দোকান আছে। এসব দোকানে ব্যবসা করে আমরা জীবিকা নির্বাহ করছি। এতে আমাদের ২৫০টি পরিবারে জন্য কর্ম-সংস্থান হয়। এছাড়া যুক্তরাজ্যে সালেহ আহমদ ছোট মিয়ার মালিকানাধীন আরো ৩টি রেস্টেুরেন্টে শতাধিক প্রবাসীর কর্ম-সংস্থান হয়েছে বলে স্থানীয়রা জানান। তাই এলাকার উন্নয়নে সালেহ আহমদ ছোট মিয়ার ব্যাপক অবদান রয়েছে এবং আগামীতেও সমাজের কল্যাণে এগিয়ে আসার জন্য সালেহ আহমদ ছোট মিয়া সহ তাঁর পরিবারের প্রতি আহবান জানান এলাকার লোকজন।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে সমাজ সেবক সালেহ আহমদ ছোট মিয়া বলেন, মানুষের কল্যাণে কাজ করতে পেরে আমি নিজেকে গর্বিত মনে করছি। সুযোগ পেলে এলাকার উন্নয়নে আরো কাজ করতে চাই।