সালথায় ছাত্রীকে টিসি দেওয়ায় সুপারের বিরুদ্ধে বিয়ের প্রস্তাবের অভিযোগ । সুপারের পক্ষে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

প্রকাশিত

ফরিদপুর প্রতিনিধি-

ফরিদপুরের সালথায় মাদ্রাসার শিক্ষার্থীকে টিসি দেওয়ায় সুপারের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেছেন শিক্ষার্থীর মা মুক্তা শেখ। সুপারের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ ও কুৎসা রটনার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে মাদ্রাসার শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা।

জানাগেছে উপজেলার মাঝারদিয়া মাহিরুননেছা দাখিল মাদ্রাসার দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী ফারজানা আক্তারকে ২৮ আগষ্ট তারিখে টিসি দেওয়া হয়। এই টিসি পেয়ে ফারজানা আক্তারের মা মুক্তা শেখ মাদ্রাসার সুপার মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

ফারজানার মা মুক্তা শেখ বলেন, মাদ্রাসার সুপার আমার মেয়েকে বিয়ের প্রস্তাব দেয়। এতে রাজি না হওয়ায় মেয়েকে মাদ্রাসা থেকে টিসি দিয়েছে। আমি সুপারের সিন্ধান্ত বাতিল করে আমার মেয়েকে লেখাপড়ার সুযোগ দেওয়ার দাবী জানাই।

 

 

অন্যদিকে শনিবার সকালে মাদ্রাসার মাঠে সুপারের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ ও কুৎসা রটনার প্রতিবাদে মাদ্রাসার শিক্ষক শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন করেছে।

অভিযোগ অস্বীকার করে মাদ্রাসার সুপার মিজানুর রহমান বলেন, ফারজানা আক্তার নিয়মিত মাদ্রাসায় আসে না। আসলেও শিক্ষকদের সাথে খারাপ আচরন করে। তাছাড়া মাদ্রাসায় ক্লাস চলাকালিন সময়ে ক্লাস ফাকি দিয়ে মাদ্রাসার বাহিরে গিয়ে বিভিন্ন বখাটে ছেলেদের সাথে আড্ডা দেয়। এতে করে অন্যান্য ছাত্রীদের মাঝে এর প্রভাব পড়ছিল। যাহা মাদ্রাসার আচরন বিধি লঙ্ঘন করা হয়। এ ছাড়াও ছাত্র থাকাকালিন আমরা বারবার নিষেধ করা সত্যেও ওর অভিভাবক ওকে বিয়ে দিয়েছে। সেখান থেকে অন্য এক ছেলের সাথে সম্পর্ক গড়ে পালিয়ে তাকেও বিয়ে করে। পরপর দুটি বিয়ে ছিন্ন করে আবার এসে মাদ্রাসায় ভর্তি হয়েছিল।

মাদ্রাসার পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ও মাঝারদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান হাবীবুর রহমান বলেন, ছাত্রীর মা যে অভিযোগ করেছে সেটা অতিরঞ্জিত করেছে। তারপরেও উভয় পক্ষকে বলেছি এর একটা সুষ্ঠু সমাধান করে দিবো।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ হাসিব সরকার বলেন, এ বিষয়ে কোন অভিযোগ পাইনি তবে বিষয়টা আমি শুনেছি এবং উভয়কেই শান্ত থকার জন্য বলা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।