পিরোজপুরে বেড়েছে বেওরিশ কুকুরের উপদ্রব

প্রকাশিত

পিরোজপুর প্রতিনিধি : পিরোজপুরে হঠাৎ করে বেড়ে গেছে বেওয়ারিশ কুকুরের উপদ্রব জেলার বিভিন্ন হাট বাজারের মাংস পট্টি ও ডাস্টবিন এলাকায় এসব কুকুরের উপদ্রপ বেশি। ফলে এসব স্থান দিয়ে যাতায়াত করা রীতিমত ঝুঁকিপূর্ণ ও বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে।
সরেজমিনে দেকা গেছে জেলা শহরের বিভিন্ন অলিগলিতে সকালে ও রাতে পাল বেঁধে ঘুরে বেড়ায় কুকুরের দল। বাজারের ক্রেতাদের ক্রয়কৃত খাদ্যসামগ্রী কেড়ে নিতে কুকুরের হামলায় প্রতিদিনই কেউ না কেউ আহত হচ্ছে। এমনকি স্কুলগামী শিক্ষার্থী, পথচারী কিংবা অটোভ্যান, সাইকেল ও মোটরসাইকেল আরোহীকেও কুকুরের দল তাড়া করে কামড়ানোর চেষ্টা করছে। এছাড় কোন অনুষ্ঠান বাড়িতে কুকুরের দাপাদাপিতে আমন্ত্রিত ব্যক্তিরা চরম আতঙ্কে ভোগেন।
পৌর এলাকার এনামুল হক বলেন, একটু রাত বাড়ার পরই শহরে শুরু হয় কুকুরের রাজত্ব। সাইকেল, মোটরসাইকেল দেখলে দল বেঁধে তেড়ে আসে কুকুর। কুকুরের কামড়ে আহত হওয়ার ঘটনা এ পাড়ায় অনেক ঘটেছে। মাছিমপুর এলাকার রুহুল আমিন বলেন, শহরের বিভিন্ন এলাকায় কুকুরের উপদ্রব বেড়েছে। ফজরের নামাজের জন্য মসজিদে যাওয়ার সময় প্রায়ই কুকুরের উৎপাতে বিপদে পড়তে হয়।
গংশ্লিষ্ট সূত্রে জানাগেছে, পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করার জন্য হাইকোর্ট থেকে সকল প্রকার প্রাণিহত্যা নিষেধ থাকায় এবং পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে কুকুর নিধনের ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকার কারনে নিধন কর্মসূচি আপাতত বন্ধ রয়েছে।
পিরোজপুরের জেলা হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানান, কুকুরের কামড়ে মরনব্যাধি জলাতঙ্ক রোগ হয়। ভ্যাকসিন না নিয়ে অপচিকিৎসা করলে মৃত্যু অনিবার্য।