দালালচক্র না থাকায় শহীদ আহসান উল্লাহ্‌ মাষ্টার জেনারেল হাসপাতালের পবিবেশ শান্ত

প্রকাশিত

শেখ রাজীব হাসান,বিশেষ প্রতিনিধিঃ গাজীপুরবাসীর চিকিৎসা সেবায় ব্যাপক ভুমিকা রাখছে শহীদ আহসান উল্লাহ্‌ মাষ্টার জেনারেল হাসপাতাল। প্রতিদিনই সেবা নিতে এখানে আসছে হাজার হাজার রোগী। এখানকার চিকিৎসা সেবা সুষ্ট  থাকলেও ঔষধ কোম্পানি গুলোর বিক্রয় প্রতিনিধি আর দালালদের বেপোরোয়া কার্যক্রমে হাসপাতালে আসা রোগীদের পরতে হতো ভোগান্তীতে। ডাক্তারদের কক্ষ থেকে একজন রোগী বের হওয়ার সাথে সাথেই তাকে ঘিরে ধরতো ঔষধ কোম্পানি গুলোর বিক্রয় প্রতিনিধিরা। এরা পর্যায়ক্রমে রোগীদের হাতে থাকা ডাক্তারের স্লিপ চেক করতো ও তাদের মুঠোফোনে ছবি তুলে রাখতো যার ফলে রোগীদের ভোগান্তীর স্বীকার হতে হতো। আশপাশের বেসরকারি হাসপাতালের দালালদের কাছ থেকে রেহাই পেতনা অসহায় গরিব রোগীরাও। তাদের মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে নিয়ে যেত অন্য হাসপাতালে সেখান থেকে মোটা অংকের কমিশন পেত দালালচক্র আর আসহায় রোগীরা পরতো বিভ্রান্তিতে। তবে গত কয়েকদিন যাবৎ হাসপাতালে খুব স্বচ্ছ অবহাওয়া ও সুন্দর পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। আর এমটা সম্ভব হয়েছে হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক আলহাজ্ব ডাঃ মোঃ কোমরউদ্দিন এর সুষ্ট পরিচালনা ও ওয়ার্ড মাষ্টার ইনচার্জ তৌহিদুল ইসলাম হৃদয়ের অক্লান্ত পরিশ্রমে।

 

 

এ বিষয়ে কথা বললে হাসপাতালের আরএমও পারভেজ হোসেন জানান, আমি প্রথমেই ধন্যবাদ জানাই গাজীপুর ২ আসনের এমপি আলহাজ্ব মোঃ জাহিদ আহসান রাসেল এমপি  (মাননীয় প্রতিমন্ত্রী, যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রাণালয়, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার) ও গাজিপুরবাসীকে। আমি আপনাদের সেবা করতে পারছি সেটা আমার বড় সৌভাগ্য। আমরা চেষ্টা করছি আপনাদের জন্য সকল ধরণের সেবা চালু করার জন্য। খুব দ্রুত হাসপাতালে নাক, কান, গলা, চক্ষু বিভাগ, কার্ডিওলজি বিভাগ, এনেসথেপিয়া বিভাগ, হেপাটোলজি বিভাগ, ফরেনসিক বিভাগ, আইসিইউ (ইউনিট), অর্থপেডিক্স, বক্ষব্যাধি, নিউরোলজি, সার্জারি, ক্যান্সার বিভাগ, রক্ত পরিসঞ্চালন বিভাগ, রেডিওলজি ও ইমেজিং বিভাগ, শিশু কিডনি বিভাগ, প্রসতি ও গাইনি বিভাগ, ইউরোলজি বিভাগ, প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগ কার্যক্রম সহ বিশেষজ্ঞ টিম গঠন করা হবে। এছাড়া হাসপাতালের ভবনের বিভিন্ন স্থানে সংস্কার কাজ চলছে। কাজ শেষ হলে সকল সমষ্যার সমাধান হয়ে যাবে। বৃষ্টি হলে ড্রেনেজ ব্যাবস্থা খারাপ থাকায় পানি জমে থাকে যার কারণে সব চাইতে বেশি সমষ্যায় পরে রোগীরা। এ বিষয়ে আমরা বহুবার গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনকে অবহিত করেছি। কিছুদিনের মধ্যে এসকল সমস্যা সমাধান হবে।