বেনাপোল কাস্টমস কমিশনারের বিরুদ্ধে প্রশ্নবিদ্ধ ও বিভ্রান্তিকর অভিযোগের প্রেক্ষিতে সিএন্ডএফ এজেন্ট এ্যাসোসিয়েশনের সাংবাদিক সন্মেলন

প্রকাশিত

বেনাপোল প্রতিনিধি:
দক্ষিন এশিয়ার সর্ববৃহৎ স্থল বন্দর বেনাপোল । ভারতের সাথে অসম বাণিজ্যে বেনাপোল বন্দরের ভুমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।প্রতি বছর দেশের সিংহভাগ শিল্পকারখানা ও গার্মেন্টস ইন্ডাষ্ট্রিজের মালামাল আমদানি এবং ভারতের সাথে প্রতি বছর ৩০ হাজার কোটি টাকার আমদানি রফতানি বানিজ্য হয় এই বন্দর দিয়ে। সরকার এ বন্দর থেকে প্রতি বছর সাড়ে ৫ হাজার কোটি টাকার রাজস্ব আদায় করে থাকে।বেনাপোল বন্দরে ব্যবসা বান্ধব পরিবেশ বজায় রাখতে কাস্টমস কমিশনার , সিএন্ডএফ এজেন্ট এ্যাসোসিয়েশন,সকল স্টেকহোল্ডার এবং স্থানীয় প্রশাসন অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে।
বৃহস্পতিবার দুপুরে বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্ট এ্যাসোসিয়েশন কার্যালয়ে এক সাংবাদিক সন্মেলনে দাবি করা হয় বেনাপোর কাস্টমস কমিশনার বেলাল চৌধুরিকে বিভ্রান্তিকর অভিযোগের ভিত্তিতে দুদক হয়রানি করছে। কমিশনারকে হয়রানি করার কারনে বেনাপোল বন্দরের স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। যার কারনে বেনাপোল বন্দর ব্যবহার কারিরা হয়রানির শিকার হচ্ছে। পাশাপাশি এসব হয়রানি কারনে বেনাপোল স্থল বন্দর ইতিমধ্যে ৮শ কোটি টাকা রাজস্ব আদায়ে ঘাটতি দেখা দিয়েছে। এই অবস্থা অব্যাহত থাকলে বেনাপোল বন্দরে আরো বেশি রাজস্ব ঘাটতির আশংকা রয়েছে। এ কারনে বেনাপোল বন্দরের রাজস্ব আদায়ে গতি অব্যাহত রাখতে কাস্টমস কমিশনারের অহেতুক হয়রানি বন্ধে সরকারসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন সিএন্ডএফ নেতৃবৃন্দ। সাংবাদিক সন্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন এ্যাসোসিয়েশনের সিনিয়র সহ সভাপতি আলহাজ্জ নুরুজ্জামান। সাংবাদিকদের বিভন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন সাধারন সম্পাদক এমদাদুল হক লতা, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মহসিন মিলন,জামাল হোসেন, সাবেক সভাপতি শামছুর রহমান, কাস্টমস বিষয়ক সম্পাদক নাসির উদ্দিনসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।