ঠাকুরগাঁওয়ে টারকী খামারীদের ৫০ কোটি টাকা আত্মসাৎকারী বাবলু রায়সহ গ্রেপ্তার-২

প্রকাশিত

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি-
ঠাকুরগাঁওয়ে টারকী মুরগীর ৩শ জন খামারীর কাছ থেকে ৫০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে রংধনু শপিং লিমিটেড কোম্পানী এন্ড হ্যাচারীর ব্যবস্থাপনা পরিচালক বাবলু রায় ও তার স্ত্রী মুক্তা রাণীকে গ্রেপ্তার করেছে ডিবি পুলিশ।
কনিবার (২১ সেপ্টেম্বর) দুপুর ২টার দিকে ঠাকুরগাঁও ডিবি পুলিশ এস আই রবিউল ইসলামের নেতৃত্বে দিনাজপুর জেলার বীরগঞ্জ উপজেলার তাজমহল মোড় থেকে রংধনু শপিং লিমিটেড কোম্পানী এন্ড হ্যাচারীর ব্যবস্থাপনা পরিচালক বাবলু রায় ও তার স্ত্রী মুক্তা রাণীকে আটক করা হয়।
আটক বাবলু রায় (৪৮) শহরের হলপাড়া এলাকার প্রয়াত ধীরেন্দ্র নাথ রায়ের ছেলে এবং তার স্ত্রী মুক্তা রাণী (৩৫)।
পুলিশ জানায়, ঠাকুরগাঁওয়ের রংধনু শপিং লিমিটেড কোম্পানী এন্ড হ্যাচারী কর্তৃপক্ষ দীর্ঘদিন ধরে ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড় ও দিনাজপুর জেলার ৩০০ জন খামারীদেরকে অধিক মুনাফা দেয়ার লোভ দেখিয়ে প্যাকেজ সিস্টেমে প্রায় ৫০ কোটি টাকার টারকী মুরগি বিক্রি করে। ৯০ দিন পর আবার সেসব খামারীদের কাছ থেকে টারকী মুরগীগুলো নিয়ে আসে কোম্পানিটি। পরে খামারীদের টাকা পরিশোধ না করেই কোম্পানিটির কর্তৃপক্ষ উধাও হয়ে যায়।
খামারীদের সাথে প্রতারণা করায় ঠাকুরগাঁও সদর থানায় ২টি ও পীরগঞ্জ থানায় ১ টি মামলাও হয়েছে। পুলিশ দীর্ঘদিন ধরে কোম্পানিটির সাথে জড়িতদের খুঁজছিল। গোপনে খবর পেয়ে শনিবার দুপুরে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলায় অভিযান চালায় ঠাকুরগাঁও ডিবি পুলিশের একটি দল। এসময় বীরগঞ্জের তাজমহল মোড় থেকে রংধনু শপিং লিমিটেড কোম্পানী এন্ড হ্যাচারীর ব্যবস্থাপনা পরিচালক বাবলু রায়কে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে শনিবার (২১ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা ৬ টাই ঠাকুরগাঁও পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সভা কক্ষে সংবাদ সম্মেলনে ঠাকুরগাঁও ডিবি পুলিশের ইন্সপেক্টর ওয়াহেদ আলী বলেন, রংধনু শপিং লিমিটেড কোম্পানী এন্ড হ্যাচারীর সাথে জড়িত অন্য আসামীদের খুব দ্রুত গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা হবে।
বাবলু রায় গ্রেপ্তারের খবর পেয়ে ঠাকুরগাঁও পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এসে ভিড় জমায় ক্ষতিগ্রস্ত খামারীরা। তারা অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।
অন্যদিকে প্রতারণার স্বীকার আরও ২৯৭ জন খামারী ওই কোম্পানির সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানায় পুলিশ।