আগের তুলনায় ২০ বছর পিছিয়ে গেছে বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থা : দুদক চেয়ারম্যান

প্রকাশিত

চাঁদপুর প্রতিনিধি: দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেছেন, বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থা আগের তুলনায় ২০ বছর পিছিয়ে গেছে। আমাদের ভাবতে হবে- আমাদের বাচ্চারা কোথায় যাচ্ছে, কি শিখছে? এর দায় সকলকে নিতে হবে। গতকাল বুধবার দুপুরে চাঁদপুর জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে স্থানীয় কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিদের সাথে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলেন তিনি। তিনি বলেন, প্রশ্নপত্র ফাঁসের দায় শুধু শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নয়, এর জন্য আমাদের সকলকে সচেতন হতে হবে। আমরা অভিভাবকরা, জনপ্রতিনিধিরা সবাই সজাগ হতে হবে।
দুদক চেয়ারম্যান বলেন, বর্তমানে প্রশ্নপত্রের সঙ্গে শুধু শিক্ষক-সরকারি কর্মকর্তা-ই নয়, এর সঙ্গে অনেক রাঘব বোয়ালও জড়িত। তাদের প্রতিও নজরদারি শুরু হয়েছে। তিনি বলেন, ‘দুদক ইতিমধ্যে ২২ হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ওপর কাজ করেছে এবং আগামীতে আরো ১১ হাজার প্রতিষ্ঠানে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে কাজ শুরু করবে। তবে সবার আগে নিজের বিবেক এবং দায়বদ্ধতাকে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য সমাজের সকল স্তরের মানুষের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। দুদক চেয়ারম্যান বলেন, যে কেউ দুর্নীতি করলেই তাকে সাজা ভোগ করতে হবে। এই জন্য অনৈতিকভাবে কাউকে আশ্রয় প্রশ্রয় দেয়াও এক ধরনের দুর্নীতির নামান্তর। তাই বিবেকের বিরুদ্ধে আপনি যাই করবেন, সেটা হচ্ছে বড় দুর্নীতি।
চাঁদপুর জেলা প্রশাসক আব্দুস সবুর ম লের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে সরকারি ও বেসরকারি বিভাগের প্রধান, শিক্ষক ও জনপ্রতিনিধি এবং সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। এ সময় নিজ নিজ দফতর কীভাবে পরিচালিত হয়- তা দুদক চেয়ারম্যানের কাছে উপস্থাপন করেন উপস্থিত প্রতিনিধিরা। এতে দুদকের মহাপরিচালক (প্রতিরোধ), অতিরিক্ত সচিব মো. জাফর ইকবাল উপস্থিত ছিলেন।