আমি সমাজ পরিবর্তনের ডাক দিচ্ছি-হাসান সরকার

প্রকাশিত

মৃণাল চৌধুরী সৈকত : গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীকের ২০ দলীয় জোটের মেয়র প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা হাসান উদ্দিন সরকার বলেছেন, ‘সিটি করপোরেশন নির্বাচন সরকার পরিবর্তনের নির্বাচন নয়, এটি স্থানীয় সরকার নির্বাচন। স্থানীয় সরকারের গুনগত মানের ওপর নির্ভর করে ওই সমাজের ভাল-মন্দের দিগগুলি। তাই এই নির্বাচনে আমি আপনাদেরকে সমাজ পরিবর্তনের ডাক দিতে এসেছি।

হাসান উদ্দিন সরকার শনিবার টঙ্গীর কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানে ঈদের জামাতে শরিক হন। তিনি জামাতের আগে মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে দোয়া চেয়ে বক্তৃতাকালে এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, একজন ভাল মানুষ একদিকে আর এক হাজার চোর একদিকে কার মর্যাদা বেশি ? নিশ্চয় যিনি ভাল মানুষ তার মর্যাদা বেশি। আমি আপনাদের মধ্যে সেই কাঙ্খিত ভালো মানুষটি হতে চাই।

সমাজ দ্রুত মন্দের দিকে পরিবর্তনে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে হাসান সরকার বলেন, টঙ্গীর এই কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানের মর্যাদাটুকুও আমরা রক্ষা করতে পারি না। এখানে যা শুরু হচ্ছে হয়তো আগামী দিনে আলেমগন এমন ফতোয়া দিতে পারেন যে, এখানে নামাজ পড়া জায়েজ হবে না। তিনি মাঠটির মর্যাদা ও পবিত্রতা রক্ষা করার জন্য টঙ্গী পাইলট স্কুল এন্ড গার্লস কলেজ কতৃপক্ষকে অনুরোধ জানিয়ে বলেন, একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য এতো বড় মাঠ কেন রাখা হয়েছিল তা আমাদেরকে ভুলে গেলে চলবে না। ঈদের জামাতে ঈমামতি করেন পীরে কামেল মুফতি ইউনুস সাহেদী। মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে বয়ানকালে তিনি বলেন, হাসান উদ্দিন সরকারের নিয়তের সাথে আমলের মিল আছে। তিনি যে নিয়তে সিটি নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন তাতে তিনি পাশ করেছেন। তিনি পরাজয় হলে এটি তাঁর পরাজয় হবে না, এটি হবে আমাদের (জনগণের) পরাজয়।

মুফতি ইউনুস সাহেদী এলাকার মসজিদগুলোর ঈমামদের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, এই ঈদগাহ ময়দানে যেসব অনুষ্ঠানের অনুমতি দেয়া হয় তাতে পাশের কলেজ মসজিদ, পৌর মসজিদ ও পাইলট মসজিদে নামাজ পড়তেও সমস্যা হয়।

এদিকে হাসান উদ্দিন সরকার ঈদের নামাজ শেষে মুসল্লিদের সাথে কুশল বিনিময় করেন। পরে তিনি টঙ্গী বাজার আনারকলি রোডে মুক্তিযোদ্ধা কাজী নূর মুহাম্মদের নামাজে জানাযায় শরিক হন। তিনি দিনব্যাপী নিজ বাসভবনে দলীয় নেতার্কীদের সাথে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।