ইউএস-বাংলা বিমান দুর্ঘটনায় বাংলাদেশী যারা

প্রকাশিত

ডেস্কঃ ভয়াবহ ওই বিমান দুর্ঘটনার পর মঙ্গলবার বিকালে কাঠমান্ডুর বাংলাদেশ দূতাবাস হতাহতদের তালিকা প্রকাশ করেছে।সোমবার দুপুরে ত্রিভুবনে বিধ্বস্ত ইউএস-বাংলার ফ্লাইট বিএস২১১ এর ৭১ আরোহীর মধ্যে মোট ৪৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। সব মিলিয়ে ২২ জন হাসপাতালে আছেন বলে জানিয়েছেন দূতাবাসের ফার্স্ট সেক্রেটারি অসিত বরণ সরকার।

চ্যানেল সিক্সকে তিনি বলেন, হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ১০ জনই গুরুতরভাবে আহত।

ইউএস বাংলা এয়ারলান্সের জনসংযোগ বিভাগের মহাব্যবস্থাপক কামরুল হাসান ঢাকায় সাংবাদিকদের বলেন, আহত ওই দশজনের মধ্যে, ইমরানা কবির হাসি, শাহরিন আহমেদ, শেখ রাশেদ রুবাইয়াত, আলমুন নাহার অ্যানি, মেহেদী হাসান, সাঈদা কামরুন্নাহার স্বর্ণা, কবির হোসেন ও মো. শাহীন বেপারি কাঠমান্ডু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

আর ইয়াকুব আলী নরভিক হাসপাতালে এবং রিজওয়ানুল হক ওম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

যাত্রীর মধ্যে ফয়সাল আহমেদ, আলিফুজ্জামান, বিলকিস আরা, বেগম হুরুন নাহার বিলকিস বানু, আখতারা বেগম, নাজিয়া আফরিন চৌধুরী,রকিবুল হাসান, হাসান ইমাম, মো. নজরুল ইসলাম, আঁখি মনি, মিনহাজ বিন নাসির, ফারুক হোসেন প্রিয়ক, তার মেয়ে প্রিয়ন্ময়ী তামারা (শিশু), মতিউর রহমান, এস এম মাহমুদুর রহমান, তাহিরা তানভিন শশী রেজা, পিয়াস রায়, বেগম উম্মে সালমা, মো. নুরুজ্জামান, রফিক জামান, তার স্ত্রী সানজিদা হক বিপাশা, তাদের ছেলে অনিরুদ্ধ জামান (শিশু) মারা গেছেন।

পাইলট আবিদ সুলতান ও ফার্স্ট অফিসার পৃথুলা রশিদ ক্রু খাজা হোসেন মো. শাফি ও শারমিন আক্তার নাবিলাকে নিয়ে ফ্লাইট বিএস২১১ পরিচালনা করছিলেন। তাদের সবাই মারা গেছেন বলে জানিয়েছে ইউএস বাংলা কর্তৃপক্ষ।

কামরুল বলেন, ফরেনসিক প্রতিবেদনসহ মেডিকেল প্রসিডিউর শেষ হওয়ার পর তাদের মরদেহ বাংলাদেশে নিয়ে আসা হবে। আহতদের চিকিৎসার সব ধরনের সহযোগিতা দিতে ইউএস বাংলা প্রস্তুত রয়েছে।

ইউএস বাংলার সিইও ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা মঙ্গলবার সকালে কাঠমান্ডুতে পৌঁছেছেন এবং সেখানে তারা তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনায় সহযোগিতা করছেন বলে জানান তিনি।