ওয়ালশ-টেন্ডুলকারদের মুখে ব্রডের প্রশংসা

প্রকাশিত

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচে টেস্টে ক্রিকেটে সপ্তম বোলার হিসেবে ৫০০ উইকেট শিকারের মাইলফলক স্পর্শ করেন ইংল্যান্ডের ডানহাতি পেসার স্টুয়ার্ট ব্রড। ইংল্যান্ডের দ্বিতীয় ও বিশ্বের চতুর্থ পেসার হিসেবে এই নজির গড়লেন তিনি। এর আগে ইংলিশদের পক্ষে ৫০০ উইকেট শিকার করেছিলেন ব্রডেরই বর্তমান সতীর্থ অভিজ্ঞ ডান-হাতি পেসার জেমস অ্যান্ডারসন।

ব্রডের প্রশংসা করে সংবাদমাধ্যমে ওয়েস্ট ইন্ডিজের কিংবদন্তি পেসার ও বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাবেক পেসার কোর্টনি ওয়ালশ বলেন, ‘৫০০ উইকেট স্পর্শ করায় ব্রডকে অভিনন্দন। কঠোর পরিশ্রমের ফল পেয়েছে সে। প্রথম টেস্টে একাদশে সুযোগ না পেয়ে কষ্ট পেয়েছিলেন ব্রড। কিন্তু দারুণভাবে ফিরে এসেছে সে।’

শৈশবের স্মৃতি মনে করে ওয়ালশ আরো বলেন, ‘আমার এখনো মনে আছে, ব্রিস্টলে তুমি আমার ছেলেকে বোলিং করেছিলে, যখন তোমরা দুজনই বাচ্চা ছিলে। দারুণ অর্জন, তুমি আরো অনেক দূর যাবে। তোমার সীমানা ৬০০ উইকেট ছাড়াবে।’

২০০১ সালের মার্চে পোর্ট অব স্পেনে দক্ষিণ আফ্রিকার অলরাউন্ডার জন ক্যালিসকে আউট করে বিশ্বের প্রথম বোলার হিসেবে ৫০০ উইকেট শিকারের কীর্তি গড়েছিলেন ওয়ালশ। এখন সেই তালিকায় সর্বমোট সাতজন আছেন। ব্রডের প্রশংসা করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে টেন্ডুলকার লেখেন, ‘দ্বিতীয় টেস্ট শুরুর পরই বলেছিলাম, ব্রডকে দারুণ উজ্জীবিত মনে হচ্ছে। সে লক্ষ্য স্থির করে খেলতে নেমেছিল। সে তার লক্ষ্য পূরণ করেছে। ৫০ উইকেট পাওয়ায় তাঁকে অভিনন্দন, অসাধারণ অর্জন।’

ক্রিকেটের জনপ্রিয় সিরিজ অ্যাশেজ। অ্যাশেজে ইংল্যান্ডের প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়া। অসিদের সাবেক অধিনায়ক রিকি পন্টিংও প্রশংসা করেছেন ব্রডের। তিনি বলেন, ‘৫শ উইকেটের জন্য অভিনন্দন ব্রডকে। সব সময়ই কঠিন এক প্রতিপক্ষ সে। দুর্দান্ত এক বোলার সে। বিশেষ করে ইংলিশ কন্ডিশনে। বড় এক অর্জন নিজের করে নিলো ব্রড। তার জন্য শুভ কামনা রইল।’

২০০৭ সালে কলম্বোতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট অভিষেক হয় ব্রডের। ব্রডকে অভিষেক টেস্ট ক্যাপ পড়িয়ে দিয়েছিলেন সেই সময়ের ইংল্যান্ড অধিনায়ক মাইকেল ভন। ব্রডের ৫শ উইকেট শিকারের দিনে ধারাভাষ্যকক্ষে ছিলেন ভন। ম্যাচ শেষে অভিষেকের সময় টেস্ট ক্যাপ উপহার দেওয়ার সেই ছবি ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করে ভন লিখেন, ‘সবসময়ই মনে হয়েছে, সে ভালো করবে এবং বহু দূর যাবে। তবে ৫শ উইকেট নেয়ার মত অবস্থা তার ছিলো না। কিন্তু স্কিল-কঠোর পরিশ্রম ও ভালো করার দৃঢ় বিশ্বাস তাকে এই পর্যায়ে নিয়ে আসছে। ব্রডকে অভিনন্দন।’

সাবেকদের ক্রিকেটারদের প্রশংসা দেখে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন ব্রড। তিনি বলেন, ‘সবার সমর্থন ও ভালোবাসায় আমি অভিভূত। অনেক ধন্যবাদ সকলকে। দলের জয়ের ম্যাচে ৫শ উইকেট পাওয়া ও সিরিজ জয়, সবই বিশেষ অনুভূতি।’