করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন বিএনপি নেতা আবদুল আউয়াল

প্রকাশিত

বিএনপির সহসাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল আউয়াল খান (৫৬) করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি…রাজিউন)। আজ সোমবার দুপুর সোয়া ২টায় মহাখালীতে শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

তার ছোট ভাই আবদুল নবিন খান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘ভাইকে (আবদুল আউয়াল খান) গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মুগদা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার করোনা টেস্ট পজিটিভ আসে।’

পরে শ্বাসকষ্ট বেড়ে গেলে মুগদাতে আইসিইউ বেড না পেয়ে শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান, যোগ করেন আবদুল নবিন খান।

তিনি আরও বলেন, ‘মুগদা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তির আগে গত ৪-৫ দিন চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে বাসাতেই আইসোলেশনে ছিলেন আবদুল আউয়াল খান।’

কুমিল্লায় জন্ম নেওয়া ঢাকা কলেজের সাবেক জিএস আবদুল আউয়াল খান এক ছেলে, এক মেয়ে ও স্ত্রীসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তারা ৬ ভাই ও ২ বোন।

আউয়াল খানের মৃত্যুতে শোক

আউয়াল খানের মৃত্যুর খবর পেয়ে হাসপাতালে ছুটে যান বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাজাহান। সাবেক ছাত্র ও যুবদল নেতার মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান, মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আবদুল আউয়াল মিন্টু, বরকত উল্লাহ বুলু, মো. শাজাহান, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, আকন কুদ্দুর রহমান, তাইফুল ইসলাম টিপু, বেলাল আহমেদ ও তাবিথ আউয়াল।