কুমিল্লায় গোয়াল ঘরে স্কুল ছাত্রের লাশ, সৎ মা আটক

প্রকাশিত

কুমিল্লা প্রতিনিধি:

কুমিল্লার চান্দিনায় বাড়ির গোয়াল ঘরের খড়ের ভিতর থেকে স্কুলের ছাত্রের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত আরাফাত হোসাইন (৮) চান্দিনার তীরচর গ্রামের মোঃ ফরিদ মিয়ার ছেলে। সে তীরচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্র। রবিবার পুলিশ তার লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।

পুুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, শনিবার দুপুর ১২টা থেকে আরাফাত হোসেনকে পাওয়া যাচ্ছিল না। তখন থেকে তার আপন মা, স্বজন সবাই বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করে। এলাকায় মাইকিং করায়। এছাড়া সৎ মা সুমী আক্তারকে সন্দেহ করে তার ঘরে ও আশেপাশে খোঁজাখুঁজি করে। পরে রাত ১১টার দিকে আরাফাত হোসাইনের লাশ বাড়ির গোয়াল ঘরের খড়ের ভেতরে পাওয়া যায়। আরাফাত হোসেনের লাশ পাওয়ার সংবাদ পেয়ে তার স্বজনসহ এলাকার দুই শতাধিক লোক সৎ মা সুমী আক্তারকে হত্যাকারী সন্দেহে তার বাড়িঘরে হামলা করে। সুমী আক্তারের বাড়িঘর ভাংচুর করে এবং সুমী আক্তারের মা ডলি আক্তারকে (৬৫) গণপিটুনি দেয়। সুমী আক্তার পাশ্ববর্তী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি জাহাঙ্গীর আলমের বাড়িতে আশ্রয় নেয়। জাহাঙ্গীর আলমের বাড়ি ঘেরাও করে সুমী আক্তারকেও বের করে নেয়ার চেষ্টা করে। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। গুরুতর আহত সুমী আক্তারের মা ডলি আক্তারকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

চান্দিনা থানার ওসি আবুল ফয়সল জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে পারিবারিক কলহের কারণে হত্যা করা হয় আরাফাতকে। জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। জিজ্ঞাসাবাদের পরে বিস্তারিত জানা যাবে। সৎ মা সুমী আক্তারকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে মহিলা হাজত খানায় রাখা হয়েছে।