কেন্দুয়ায় স্বামীর বিরুদ্ধে স্ত্রীর অভিযোগ

প্রকাশিত

নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলায় সালেহা আক্তার নামে এক স্ত্রীকে স্বামী পুতুল মিয়া ভরণপোষণ না করা এবং স্ত্রীর অনুমতি ছাড়াই একাধিক বিয়ে করায় থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন স্ত্রী সালেহা। ভরণপোষণসহ স্বামীকে ফিরে পাওয়ার দাবী জানিয়ে রবিবার সন্ধ্যায় কেন্দুয়া থানায় এ লিখিত অভিযোগটি দায়ের করেন তিনি।

অভিযোগে জানা গেছে, কেন্দুয়া উপজেলার মাসকা ইউনিয়নের কীর্ত্তনখলা গ্রামের মৃত কুলমাহমুদের ছেলে পুতুল মিয়া (৪৫)। তিনি পেশায় একজন রাজমিস্ত্রী। ২০১৭ সালের ৩ মে পুতুল মিয়ার সঙ্গে ইসলামী শরীয়া মোতাবেক বিয়ে হয় একই গ্রামের মৃত তনুর উদ্দিনের মেয়ে সালেহা আক্তারের।

কিন্তু পুতুল মিয়া রাজমিস্ত্রীর কাজ করতে বিভিন্ন এলাকায় অবস্থান করার সুবাদে প্রথম স্ত্রী সালেহার অনুমতি ছাড়াই তিনি কনা আক্তার, শাহনাজ বেগম ও মালা আক্তারসহ একাধিক নারীকে বিয়ে করেন তিনি। প্রথম স্ত্রীর কোনো ভরণপোষণ না করে এবং তার কোনো খোঁজ-খবর না নিয়েই তিনি অন্য স্ত্রীদের নিয়ে সংসার করে আসছেন।

স্বামীর ভরণপোষণ বঞ্চিত নিঃসন্তান সালেহা আক্তার সাংবাদিকদের জানান, স্বামীর কাছে ভরণপোষণ চেয়ে মোবাইল করলে সে নানা হুমকি দিয়ে আমাকে গালাগাল করে। এমনকি নতুন স্ত্রী মালা আক্তারকে দিয়ে অকথ্য ভাষায় গালাগালসহ নানা হুমকি দেয়। তাই তিনি নিরুপায় হয়ে স্বামী পুতুল মিয়ার বিরুদ্ধে থানায় এ লিখিত অভিযোগটি দায়ের করেছেন। তিনি আরো জানান, স্বামী তাঁর কোনো খোঁজখবর না নেওয়ায় দীর্ঘদিন যাবৎ তিনি ভাইদের সংসারে থেকে অত্যন্ত মানবেতর জীবনযাপন করছেন।

এ ব্যাপারে কেন্দুয়া থানার ওসি ইমারত হোসেন গাজী বলেন, থানায় অভিযোগ দিলেও এসব ঘটনায় মূলত আদালতে গিয়েই মামলা করতে হয়।