‘খালেদা জিয়ার বহর থেকেই পুলিশের ওপর হামলা হয়েছে’

প্রকাশিত

নিজস্ব প্রতিবেদক, সংসদ থেকে:স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, গত ৩০ জানুয়ারি (ফেনী শহরের আশপাশে বিভিন্ন স্থানে) খালেদা জিয়ার গাড়ি বহরের সামনে থেকেই পুলিশের ওপর অতর্কিত হামলা করা হয়েছে। সেদিন হামলাকারীরা প্রিজন ভ্যান ভাঙচুর করে। সেদিনের ভিডিও ফুটেজ দেখে হামলাকারীদের শনাক্ত করা হচ্ছে।

রোববার দশম সংসদের ১৯তম অধিবেশনে সংসদ সদস্য বেগম ফজিলাতুন নেসার (মহিলা আসন-২২) এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘সেদিন তারা পুলিশের ওপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে পুলিশের দুটি রাইফেল ভেঙেছে, প্রিজন ভ্যান ভাঙচুর করেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘পুলিশ অত্যন্ত ধৈর্য্যের সঙ্গে পরিস্থিতি মোকাবেলা করেছে। ভিডিও দেখে জড়িতদের শনাক্ত করা হচ্ছে। শনাক্ত করে তাদের সবাইকে আইনের মুখোমুখি করা হবে।’

সাংসদ এ কে এম মাঈদুল ইসলামের (কুড়িগ্রাম-৩) এক পশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে বৈধভাবে বিভিন্ন পেশায় কর্মরত আছেন ৪৪টি দেশের মোট ৮৫ হাজার ৪৮৬ জন নাগরিক। এর মধ্যে ৬৭ হাজার ৮৮৫ জনই নিজস্ব ব্যবসা পরিচালনা করছেন। সবচেয়ে বেশি আছেন ভারতের নাগরিক। প্রতিবেশী রাষ্ট্রটির ৩৫ হাজার ৩৮৬ জন এ দেশে বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত রয়েছেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বৈধ পথে আসা বিদেশী নাগরিকরা বিশেষজ্ঞ, কান্ট্রি ম্যানেজার, কনসালট্যান্ট, কোয়ালিটি কন্ট্রোলার, মার্চেন্ডাইজার, টেকনিশিয়ান, সুপারভাইজার, চিকিৎসক, নার্স, ম্যানেজার, প্রকৌশলী, প্রডাকশন ম্যানেজার, ডাইরেক্টর, কুক, ফ্যাশন ডিজাইনার, শিক্ষক প্রভৃতি ক্যাটাগরিতে কাজ করছেন।’ মন্ত্রীর দেওয়া পরিসংখ্যানে দেখা যায় ৬৭ হাজার ৮৫৩ জন ব্যবসায়ীর পাশাপাশি রয়েছেন ৮ হাজার ৩০০ এক্সপোর্টার, ৩ হাজার ৬৮২ জন কর্মকর্তা, ২ হাজার ১০৫ জন খেলোয়াড় ও স্পোর্টস সংগঠক, ৯২২ জন বিনিয়োগকারী, ৮০৪ পার্সোনাল স্টাফ (ব্যক্তিগত কর্মচারি), ৭২৭ জন ইক্যুইপমেন্ট টেকনিক্যাল পার্সোনাল (কারিগরি যন্ত্র সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি), ৫৬১ জন এনজিও (বেসরকারি সংস্থা) কর্মী, ৪০০ জন রিসার্চ বা ট্রেনিং স্টাফ ও ১৩২ জন গৃহকর্মী।

জননিরাপত্তা বিভাগের দেওয়া অপর তালিকা অনুযায়ী, ৪৪টি দেশের মধ্যে ভারতের পরেই রয়েছে চীন। তাদের ১৩ হাজার ২৬৮ জন বাংলাদেশে কাজ করছেন। রয়েছেন জাপানের ৪ হাজার ৯৩, দক্ষিণ কোরিয়ার ৩ হাজার ৩৯৫, মালয়েশিয়ার ৩ হাজার ৮০, শ্রীলংকার ৩ হাজার ৭৭, থাইল্যান্ডের ২ হাজার ২৮৪, যুক্তরাজ্যের ১ হাজার ৮০৪, যুক্তরাষ্ট্রের ১ হাজার ৪৪৮, জার্মানির ১ হাজার ৪৪৭, সিঙ্গাপুরের ১ হাজার ৩২০ ও তুরস্কের ১ হাজার ১৩৪ জন। ফ্রান্সের ৯০৭, ইন্দোনেশিয়ার ৮৫৯, ফিলিপাইনেরও ৮৫৯, রাশিয়ার ৮৪৫, নেদারল্যান্ডসের ৮১৮, ইতালির ৭৯৫, পাকিস্তানের ৭১৩, ভিয়েতনামের ৬৫৪, অষ্ট্রেলিয়ার ৫৬৩, স্পেনের ৫৩২, কানাডার ৪০৪, মিশরের ৩৬৯, সাউথ আফ্রিকার ৩১৮, সুইডেনের ২৫১, ডেনমার্কের ২৩৭, বেলজিয়ামের ২৩৫, নাইজেরিয়ার ২২৮, মরিশাসের ২২৪, সৌদি আরবের ২২৩, নেপালের ১৮৫, সুইজারল্যান্ডের ১৮৪, তাইওয়ানের ১৮২, ইরানের ১৫৪, বেলারুশের ১৪৪, পোল্যান্ডের ১৩৮, ব্রাজিলের ১৩৭, অস্ট্রিয়ার ১২৯, ইউক্রেনের ১২৮, মালদ্বীপের ১২৬, জর্ডানের ১০৯ ও উজবেকিস্তানের ১০৩ জন এই দেশে কাজ করছেন। এছাড়া অন্যান্য দেশের রয়েছেন আরো ১ হাজার ৯৯৭ জন।