গণস্বাস্থ্যে গিয়ে করোনা পরীক্ষার সুযোগ

প্রকাশিত

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ নিজেদের উদ্ভাবিত কোভিড-১৯ সংক্রমণ নির্ণয়ক GR Covid-19 Dot Blot কিটের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শুরু করতে যাচ্ছে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র। যে কেউ চাইলেই গণস্বাস্থ্যে গিয়ে এই কিটের মাধ্যমে করোনা টেস্ট করাতে পারবেন। তবে তাকে ২০০ টাকা দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে।

শনিবার (৯ মে) রাতে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘আমারা ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে যাচ্ছি মানুষকে সাহায্য করা জন্য, এতে অন্য কোনো লাভ হবে না। এতে জনসাধারণের লাভ হবে। যাদের কিডনির রোগ আছে, হার্টের রোগ আছে-এরা পরীক্ষা করাতে পারছে না। আমরা বলেই নিচ্ছি এটা সরকার অনুমোদিত না। সবকিছু জানার পর যদি কেউ করতে চায় করতে পারে। তবে এজন্য তাকে ২০০ টাকা দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের নাম বলে টেস্ট করানোর কথা বলে একজনের কাছ থেকে কে বা কারা চার হাজার টাকা নিয়েছে। অথচ বিষয়টি আমরা কিছুই জানি না। এজন্য আমরা বলছি- জনসাধারণ সরাসরি আমাদের কাছে আসুক।’

কিটের কার্যকারিতা যাচাইয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে স্যাম্পল দেওয়া হয়েছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমারা দেওয়ার জন্য তো বসে আছি। কিন্তু এখনো তো নেয়নি। এজন্য তো এতো দিনে নিজেরা ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালটা করিনি। ওদেরটা হলেই তো আমাদের কাজ শেষ হয়ে যায়।’

বিএসএমএমইউর সাথে কোনো বৈঠক হয়েছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘একাধিকবার ডেকেছে। আগামীকাল তারা জানাবে কবে স্যাম্পল নেবে।’

এর আগে ২৯ এপ্রিল ওষুধ প্রশাসন গণস্বাস্থ্যের আবেদনের প্রেক্ষিতে দুটি প্রতিষ্ঠানকে কিটের কার্যকারিতা যাচাইয়ে অনুমতি দেয়। বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল ও আইসিডিডিআরবি। এরপর এই কিটের কার্যকারিতা যাচাইয়ে ২ মে বিএসএমএমইউ’র ভাইরোলজি বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. শাহীনা তাবাসসুমকে প্রিন্সিপাল ইনভেস্টিগেটর করে ছয় সদস্যের একটি কমিটি গঠন করে।

গত ২৫ এপ্রিল সরকারের কাছে কিটের স্যাম্পল হস্তান্তর করার কথা ছিল। তবে এদিন ওষুধ প্রশাসন থেকে কেউ কিট গ্রহণ করতে যায়নি। ওই দিন শুধু মার্কিন সিডিসি স্যাম্পল নেয়। পরের দিন ২৬ এপ্রিল গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে ওষুধ প্রশাসনে কিট নিয়ে গেলে তারাও তা গ্রহণ করেনি। ওই দিন বিকেলেই সংবাদ সম্মেলন করেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী