গাবতলীতে ৩শ’বিঘা জমিতে আমনচাষ অনিশ্চিত দিশাহারা কৃষক

প্রকাশিত

আল আমিন মন্ডল, বগুড়া প্রতিনিধি :

বগুড়ার গাবতলী বালিয়াদিঘী কলাকোপা লাংলাবিলের মুখ বন্ধ করে দেওয়া’য় কৃষকদের এ মৌসূমে ৩শ বিঘা জমিতে আমন ধান চাষ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। ফলে কৃষক পরিবারগুলো দিশাহারা হয়ে প্রতিকার চেয়ে ইউএনও বরাবরে একটি লিখিত আবেদন দায়ের করেছে।
অভিযোগ ও এলাকাবাসী জানায়, বালিয়াদিঘী ইউনিয়নের কলাকোপা গ্রামের লাংলা বিলের পানি (সেচ) দিয়ে এলাকার দু’শতাধিক কৃষক পরিবার ২শ ৫০থেকে ৩শ বিঘা জমিতে ফসল চাষ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসচ্ছিল। হঠাৎ কলাকোপা জামতলা গ্রামের বিবাদী মৃত ফাইজুল্লাহ পুত্র বজলু প্রাং, রহিমুদ্দিনের পুত্র আফছার প্রাং, ছইমুদ্দিনের পুত্র আনিছার প্রাং ও খোকা’সহ অজ্ঞাত কয়েকজন লোক লাংলাবিলের সরকারী খাস নালা (পানি নিস্কাশনের মুখ) বন্ধ করে দিয়ে জোরপূর্বক বাড়ীঘর নির্মান করে। এরপর গ্রামের লোকজন তাদের নির্মান কাজে বারবার নিষেধ করার পরেও তারা বিষয়টি কোন কর্নপাত করেনি। এতে করে এ বর্ষা মৌসূমে পানি জমে যায়। এরপর বৃষ্টির পানি বের না হওয়ায় এলাকার কৃষকদের প্রায় ২শ থেকে ৩শ বিঘা জমিতে চাষবাদ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। ফলে কৃষকদের ব্যাপক ক্ষতি সাধন হচ্ছে। এর প্রতিকার চেয়ে সচেতন কৃষক আশরাফ আলী মন্ডল’সহ শতাধিক কৃষক স্বাক্ষরিত একটি লিখিত আবেদন গত ১২আগষ্ট গাবতলী ইউএনও বরাবরে দায়ের করা হয়েছে। এ বিষয়ে বালিয়াদিঘী ইউপি চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান জানান, বিষয়টি আমাকে না জেনে তারা নির্মান কাজ করে বিলের পানি নিস্কাশনের মুখ বন্ধ করে দিয়েছে। এতে করে গ্রামের কৃষকরা বর্তমান মৌসূমে আমন ধান’সহ অন্যান্য ফসল চাষবাদ করতে পারছে না। তবে বিষয়টি দ্রুত সমাধানের জন্য সংশ্লিষ্ট কৃর্তপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক পরিবার।