চট্টগ্রামে ভুল চিকিৎসায় সাংবাদিক কন্যার মৃত্যু : সোস্যাল মিডিয়া জুড়ে শোক ও নিন্দা

প্রকাশিত

চট্রগ্রাম প্রতিনিধি : চট্টগ্রামের একটি বেসরকারি ক্লিনিকে ভুল চিকিৎসায় আড়াই বছরের শিশু কণ্যা রাইফা খানের মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ডাক্তার-নার্সের ভুল চিকিৎসায় গত শুক্রবার রাত ১১ টায় নগরীর ম্যাক্স হাসপাতালে রাইফা শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করে। ‌‌রাইফা দৈনিক সমকালের চট্টগ্রাম ব্যুরোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রুবেল খানের মেয়ে। রুবেল খান চট্টগ্রাম স্পোর্টস জার্নালিস্টস এসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি এবং চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব ও চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সদস্য।

অভিযোগ উঠেছে, দায়িত্বরত ডাক্তারের পরামর্শে ডিউটি নার্স রাইফাকে ভুল ইঞ্জেকশান প্রয়োগ করেন। রাত ৯-১০ টার সময় হাসিখুশি থাকা রাইফাকে রাত ১১ টায় ইঞ্জেকশান দেয়ার পরেই একটি খিঁচুনি দিয়ে সে মৃত্যুবরণ করে।

সাংবাদিক রুবেল খানের পরিবারের অভিযোগ, শিশু রাইফার ঠাণ্ডা লেগে গলা ব্যথা করায় বিশেষজ্ঞ এক চিকিৎসকের পরামর্শে ম্যাক্স হাসপাতালে ভর্তি করান। রাতে রাইফাকে অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়া হলে সে অস্বস্তি বোধ করে। বিষয়টি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে জানালে তারা শিশু বিশেষজ্ঞকে কল দেওয়ার পরামর্শ দেন। এরপর শিশু বিশেষজ্ঞ বিধান বড়ুয়ার দেওয়া ওষুধে রাইফার খিঁচুনি শুরু হয়। পরে বিষয়টি দায়িত্বরত চিকিৎসককে জানালে তিনি ডা. বিধান বড়ুয়ার সাথে কথা বলে ‘সেডিল’ ইনজেকশন পুশ করেন। এরপর রাইফা নিস্তেজ হয়ে যায়।

এই ঘটনার পরপর সর্বস্তরের সাংবাদিক এবং সাংবাদিক সংগঠন নেতাবৃন্দরা রাতেই ম্যক্স হাসপাতালে ছুটে যান। তাদের প্রতিবাদের মুখে অভিযোগের প্রেক্ষিতে চকবাজার থানা পুলিশ অভিযুক্ত ডাক্তার, নার্স ও হাসপাতাল সুপারভাইজারকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। পরে ডাক্তারদের সংগঠন বিএমএ’র কতিপয় নেতা থানায় এসে আটককৃতদের ছেড়ে দিতে জোর লবিং শুরু করে। এসময় চিকিৎসক নেতারা চট্টগ্রামের চিকিৎসাসেবা বন্ধ করে দেয়ার হুমকি দেয়। এতে সাংবাদিক ও সচেতন মহল তাদের আচরণে ক্ষুদ্ধ হলে শনিবার ভোরে ত্রিপক্ষীয় বৈঠকের পর আটক চিকিৎসক ও নার্সকে থানা থেকে ছেড়ে দেওয়া হয় বলে জানান চকবাজার থানার ওসি আবুল কালাম। চকবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল কালাম জানান, সাংবাদিক ও চিকিৎসক নেতাদের সাথে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কমিটিতে জেলা সিভিল সার্জন, বিএমএ প্রতিনিধি, সিউজে প্রতিনিধি ও পুলিশের প্রতিনিধি থাকবেন। তদন্তে কমিটির প্রতিবেদনে চিকিৎসায় কোন অবহেলা পাওয়া গেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত হয়েছে।

চট্টগ্রামের সংবাদকর্মীদের ফেসবুক ওয়ালে নিন্দা, প্রতিবাদ ও শোকের ঝড়
আড়াই বছরের শিশু রাইফার মৃত্যুতে সোস্যাল মিডিয়ায় সাংবাদিকদের তীব্র নিন্দা ও করুণ শোক বার্তার ঝড় উঠে। ফেসবুক পাতা যেন এক মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে।

হাসপাতালে নার্সের ভুল ইঞ্জেকশনের ছোবল মুহুর্তেই কেড়ে নিয়েছে কোমলমতি শিশুটির প্রাণ। কন্যার অল্প গলা ব্যাথায় যেই বাবার ঘুম হারাম হয়েছিল সেই বাবা এই শোক বইবেন কি করে! কি করে বইবেন তিনি খুনিদের বিচার নামের প্রহসন, আর তদন্ত কমিটি-কমিটি সান্তনা পুরস্কারের মিথ্যে আশ্বাস ! কি কি করে মেনে নিবেন তিনি দাপুটে চিকিৎসক, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের উল্টো চোখ রাঙানি?