চার দিনের টেস্ট শেষ দুই দিনে!

প্রকাশিত

স্পোর্টস ডেস্ক : হোক না ‘পরীক্ষামূলক’ তবুও তো ইতিহাসের প্রথম চার দিনের টেস্ট। তারই ইতিহাসটাই কিনা লেখা হলো এমন বেহাল ভাবে! দক্ষিণ আফ্রিকার বোলিং তোপে ম্যাচটি স্থায়ী হয়েছে মাত্র দুই দিন। আরো ছোট করে বললে মাত্র চার সেশন! সফরকারী জিম্বাবুয়েকে তারা উড়িয়ে দিয়েছে ইনিংস ও ১২০ রানে।
প্রথম ইনিংসে মরনে মর্কেলের তোপে জিম্বাবুয়ে অল-আউট হয় ৬৮ রানে, দ্বিতীয় ইনিংসে কেশভ মহারাজের ঘূর্ণীতে ১২১ রানে। এইডেন মারক্রামের শতকে ৯ উইকেটে ৩০৯ রান করে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করে প্রোটিয়ারা।
সব মিলে পোর্ট এলিজাবেথের দিবা-রাত্রির এই টেস্টে খেলা হয়েছে মাত্র ৯০৭ বল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর যা তৃতীয় সর্বনি¤œ দৈর্ঘের ম্যাচ। ২০০৫ সালের পর এই প্রথম দুই দিনেই শেষ হলো কোন টেস্ট। সেবারও ভুক্তভোগী দলটির নাম ছিল জিম্বাবুয়ে, নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে।
গতকাল দ্বিতীয় দিনে ৫৬ ওভার খেলে জিম্বাবুয়ে হারায় ১৪ উইকেট। ৩৬ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে নিজেদের সর্বনি¤œ রানের (৫১) শঙ্কা কাটিয়ে প্রথম ইনিংসে সফরকারীরা করে ৬৮ রান, ৩০.১ ওভারে। ফলোয়ান এড়াতে করতে হতো আরো ৯৭। কিন্তু মরনে মর্কেলের ক্যারিয়ারের সপ্তম ৫ উইকেট শিকারে তা হয়নি।
২৩১ রানে পিছিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে শুরুটা তাদের ভালোই ছিল। কিন্তু ২৬ ওভারে ১ উইকেটে ৭৫ রান থেকে ৪২.৩ ওভারে যেতেই সব শেষ। মরনে মর্কেলের লাফিয়ে ওঠা গুড লেন্থের বল কনুইয়ে আঘাত হানলে আহত অবসরে মাঠ ছাড়তে বাধ্য হন এই হ্যামিল্টন মাসাকাদজা। পরে এসেও কিছু করতে পরেননি। এ যাত্রায় তাদের ধরাশায়ী করেন কেশভ মহারাজ, ৫৯ রানে এই স্পিনার নেন ৫ উইকেট। প্রথম ইনিংসে ২ উইকেট নেয়া ফেলুকায়ো নেন ৩ উইকেট।
দক্ষিণ আফ্রিকা ১ম ইনিংস : ৭৮.৩ ওভারে ৩০৯/৯ ডি. (এলগার ৩১, মারক্রাম ১২৫, আমলা ৩, ডি ভিলিয়ার্স ৫৩, বাভুমা ৪৪, ডি কক ২৪, ফিল্যান্ডার ১০, ফেলুকায়ো ৪*, রাবাদা ১, মহারাজ ৫; জার্ভিস ৩/৫৭, মুজারাবানি ০/৪৮, পোফু ৩/৫৮, চিবাবা ০/৫১, ক্রেমার ২/৬৬, রাজা ০/২৫)।
জিম্বাবুয়ে : ৩১.১ ওভারে ৬৮ ও (ব্রল ১৬*, জার্ভিস ২৩*; মর্কেল ৫/২১, ফিল্যান্ডার ১/২১, রাবাদা ২/১২, ফেলুকায়ো ২/১২) ও ৪২.৩ ওভারে ১২১ (আরভিন ২৩, ক্রেমার ১৮*; ফিল্যান্ডার ১/১০, মহারাজ ৫/৫৯, রাবাদা ১/১২, ফেলুকায়ো ৩/১৩)।
ফল : দক্ষিণ আফ্রিকা ইনিংস ও ১২০ রানে জয়ী

Be the first to write a comment.

Leave a Reply