টঙ্গীতে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের ককটেল বিস্ফোরণ, অস্ত্র মহড়া, এলাকায় আতংক!!!

প্রকাশিত

নিজস্ব প্রতিবেদক,টঙ্গী :-টঙ্গীতে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে একদল দুর্বৃত্ত। দুবৃর্ত্তরা এসময় দেশীয় অস্ত্র, রামদা, লোহা ও লাঠিসোটা হাতে মহড়া দেয়। বুধবার রাতে টঙ্গীর বড় দেওড়া হজরত শাহজালাল রোড এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এতে এলাকায় আতংকের সৃষ্টি হয়।

এর আগে গত শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) রাতে একই এলাকায় অবস্থিত ৫৩ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের অস্থায়ী কার্যালয়ে হামলা চালায় ওরা। এসময় ওরা ছাত্রলীগ কার্যালয়ের দেয়ালে লাগানো জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি ভাংচুর করে। হামলায় টঙ্গী থানা ছাত্রলীগ নেতা রাসেদ খান মেনন ও মেহেদী খান আহত হয়। ওই ঘটনায় টঙ্গী থানায় বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি অবমাননার একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, পারিবারিক বিরোধ, মাদক ব্যবসায় বাধা দেওয়া ও আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বেশ কয়েকদিন যাবত ছাত্রলীগ নেতা রাসেদ, মেহেদী ও স্থানীয় সাঈদের সঙ্গে বিরোধ চলে আসছিলো একই এলাকার আজিজ রানা হায়দার, মিশু হায়দার, আজিজুল ইসলাম নয়ন ও ছাত্রদল নেতা অনিকের। এ নিয়ে গত শুক্রবার রাতে ৫৩ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের অস্থায়ী অফিসে হামলা চালায় আজিজ রানা হায়দার ও তার সহযোগীরা। এরই জের ধরে বুধবার রাতে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আবারো আজিজ রানার বড় ভাই মিশু হায়দার ও ছাত্রদলের ক্যাডার অনিকের নেতৃত্বে একদল দুর্বৃত্ত হজরত শাহজালাল রোড এলাকায় ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতংক সৃষ্টি করে। বিস্ফোরণের শব্দে আশপাশের দোকানপাট বন্ধ হয়ে গেলে দুর্বৃত্তরা দেশীয় অস্ত্র, রামদা, লোহা ও লাঠিসোটা নিয়ে ওই এলাকায় মহড়া দেয়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন টঙ্গী থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক মাহবুব হাসান।
ছাত্রলীগ নেতা রাসেদ খান মেনন জানান, গত শুক্রবার ছাত্রলীগের অফিসে হামলা চালিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি ভাংচুর করে দুর্বৃত্তরা। এঘটনায় আমি নিজে বাদী হয়ে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি অবমাননার অভিযোগে টঙ্গী থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করি। ক্ষিপ্ত হয়ে স্থানীয় মিশু হায়দার, ছাত্রদলের ক্যাডার অনিক ও চিহ্নিত ছিনতাইকারী চয়নের নেতৃত্বে একদল দুর্বৃত্ত মুখোশ লাগিয়ে আমাদের বাড়ির সামনে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় এবং অস্ত্রের মহড়া দেয়। বিষয়টি আমরা মহানগর আওয়ামীলীগ ও ছাত্রলীগের সিনিয়র নেতৃবৃন্দকে জানিয়েছি।
টঙ্গী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামাল হোসেন বলেন, শুনেছি বড় দেওড়ায় ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। তবে এ বিষয়ে কেউ থানায় কোন অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে তদন্তসাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।