টঙ্গীতে ব্যাংক কর্মকর্তাকে পিটিয়ে আহত ॥ সার্জেন্টসহ এক কনষ্টেবল প্রত্যাহার

প্রকাশিত

মৃণাল চৌধুরী সৈকত :
টঙ্গীর সাতাইশ এলাকায় সোনালী ব্যাংকের কর্মকর্তা মো. আমির হোসেনকে পিটিয়ে আহত করার ঘটনায় সার্জেন্ট ফিরোজ এবং কনস্টেবল শ্যামল দত্ত নামে দুই পুলিশ সদস্যকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। আহত ব্যাংক কর্মকর্তাকে উদ্ধার করে টঙ্গী আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।
আহত ব্যাংক কর্মকর্তা মো. আমির হোসেন টঙ্গীর সাতাইশ ব্যাংকপাড়া এলাকার বাসিন্দা। তিনি সোনালী ব্যাংকের গাজীপুরের বোর্ডবাজার জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সিনিয়র কর্মকর্তা হিসেব কর্মরত।
স্থানীয়রা জানায়, ব্যাংক কর্মকর্তা আমির হোসেন রোববার সকালে সাতাইশ ব্যাংকপাড়া এলাকার বাসা থেকে বের হয়ে রিকশায় করে অফিসে যাচ্ছিলেন। পথে ঢাকা ময়মনসিংহ মহাসড়কের সাতাইশ রোডের মাথায় গাজীপুরা বাসষ্টেশনের কাছে পৌঁছালে সেখানে কর্তব্যরত সার্জেন্ট ফিরোজ এবং কনস্টেবল শ্যামল দত্ত রিকশাটির গতিরোধ করেন। ওই সময় ওখানে কর্তব্যরত সার্জেন্ট ফিরোজ এবং কনস্টেবল শ্যামল দত্ত নামে দুই পুলিশ সদস্যের সঙ্গে আমির হোসেনের বাকবিতণ্ডা শুরু হয়। এর জের ধরে পুলিশের সার্জেন্ট ফিরোজ ও কনস্টেবল শ্যামল অকথ্য ভাষায় তাকে গালিগালাজ শুরু করেন। আমির হোসেন এর প্রতিবাদ জানালে তারা তাকে পিটিয়ে আহত করেন। এসময় আশাপাশের লোকজন ছুটে এসে আহত ব্যাংক কর্মকর্তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যায়।
ব্যাংক কর্মকর্তা আমির হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, হঠাৎ করে দুই পুলিশ সদস্য আমাকে অকথ্য ভঅষায় গালাগাল দিতে থাকে আমি প্রতিবাদ করলে তারা এলোপাথাড়ি মারধর করে। তারা আমার গায়ের জামা-কাপড় ছিঁড়ে ফেলে। হাতের আঙ্গুলে আঘাত করলে নখ ফেটে রক্ত বের হয়।
গাজীপুর ট্রাফিক বিভাগের সহকারী পুলিশ সুপার মো. সালেহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, ব্যাংক কর্মকর্তাকে মারধরের ঘটনায় সার্জেট ফিরোজ ও কনস্টেবল শ্যামল দত্তকে প্রত্যাহার করে গাজীপুর পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে। এছাড়া টঙ্গী থানায় সাধারণ ডায়েরি দায়ের করে ঘটনাটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।
##