টাঙ্গাইলে বাসে প্রতিবন্ধী নারীকে ধর্ষণের আলামত মিলেছে

প্রকাশিত

টাঙ্গাইলে বাসে গণধর্ষণের ঘটনায় প্রতিবন্ধী নারীর ডাক্তারি পরীক্ষা সম্মন্ন হয়েছে। এতে ধর্ষণের প্রাথমিক আলামত পাওয়া গেছে। শনিবার দুপুরে টাঙ্গাইল ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ওই নারীর ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করেন গাইনি বিভাগের চিকিৎসক ডা. রেহেনা পারভীন।

তিনি জানান, পরীক্ষায় ধর্ষণের প্রাথমিক আলামত পাওয়া গেছে। এরপর বিকেলে ওই নারীকে পুলিশে হস্তান্তর করা হয়।

বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোশারফ হোসেন জানান, গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় টাঙ্গাইল থেকে ছেড়ে আসা একটি বাস যাত্রী নিয়ে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্বপার বাসস্ট্যান্ডে পৌঁছায়। তবে বাসস্ট্যান্ডে অন্যান্য যাত্রীরা নেমে গেলেও গাটিটিতে বসা ছিল প্রায় ২৮ বছরের এক প্রতিবন্ধী নারী। ফাঁকা বাসে ওই নারীকে পেয়ে তাকে ধর্ষণ করে বাস চালক, সুপারভাইজার ও হেলপার। এ সময় ধর্ষণের শিকার ওই নারীর ডাক চিৎকার শুনে মহাসড়কের টহলরত পুলিশ বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্বপার বাসস্ট্যান্ড দাঁড়ানো বাস থেকে হাতেনাতে ধর্ষক হেলপারকে ধরতে সক্ষম হয়। তবে চালক ও সুপারভাইজার বাস থেকে পালিয়ে যায়। এ সময় ধর্ষিতা নারীকে উদ্ধার করে পুলিশ হেফাজতে রাখে। তিনি বুদ্ধি প্রতিবন্ধী হওয়ায় নাম-ঠিকানা বলতে না পারায় এখনও তার পরিচয় পাওয়া যায়নি।

ওসি আরও জানান, শুক্রবার এ ঘটনায় জড়িত গ্রেফতার হেলপার নাজমুলকে টাঙ্গাইল কারাগারে পাঠানো হয়। সে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। তবে ধর্ষণে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করলেও বাসচালক আলম এ ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটিয়েছে বলে নাজমুল জানিয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত অন্যদের গ্রেফতারে অভিযান চালানো হচ্ছে।