টেস্ট সিরিজ জেতার সুযোগ দেখছেন মাহমুদউল্লাহ

প্রকাশিত

স্পোর্টস রিপোর্টার: চট্টগ্রাম টেস্টে লড়াকু ড্রয়ের পর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টটি শুরু হচ্ছে আজ। এবার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট জিততে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ। মিরপুর টেস্ট জিতে তিন বছর পর ঘরের মাঠে টেস্ট সিরিজ জিততে চায় মাহমুদউল্লাহরা। ২০১৪ সালের জিম্বাবুয়েকে ৩-০ ব্যবধানে হারিয়ে টেস্ট সিরিজ জিতে নেয় বাংলাদেশ। এরপর ঘরের মাঠে টেস্টে ধারাবাহিকভাবে ভালো ফল পাচ্ছে টাইগাররা। তবে টেস্ট জিতলেও জেতা হচ্ছে না সিরিজ। পাকিস্তানের বিপক্ষে ২০১৫ সালে খুলনা টেস্ট ড্রয়ের পর হেরেছিল ঢাকা টেস্ট। এরপর আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা, ইংল্যান্ড এবং অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ ড্র করে বাংলাদেশ। ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজ ড্র হয়েছে বৃষ্টির আর্শীবাদে। কিন্তু ইংল্যান্ড ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে মাঠে প্রতিদ্বন্দ্বীতা ক্রিকেট খেলে ড্র করে টাইগাররা।
ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ২০১৬ সালে চট্টগ্রাম টেস্ট শেষ মুহূর্তে গিয়ে টেস্ট হারে বাংলাদেশ। পরবর্তীতে ঢাকা টেস্ট জিতে ১-১ ব্যবধানে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ ড্র করে। ২০১৭ বাংলাদেশ অস্ট্রেলিয়াকে আতিথ্য দিয়ে ঢাকা টেস্ট দারুণভাবে জিতে নেয়। কিন্তু চট্টগ্রামে অস্ট্রেলিয়া দাপট দেখায়। দুই ম্যাচের সিরিজ ড্র ১-১ ব্যবধানে। এবার বাংলাদেশের সামনে টেস্ট সিরিজ জেতার সূবর্ণ সুযোগ। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্ট ড্র করেছে বাংলাদেশ। আজ থেকে শুরু হওয়া ঢাকা টেস্টে জয় পেতে উদগ্রীব দল। অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহর কন্ঠে আত্মবিশ্বাসী সুর। ম্যাচ পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে গতকাল ?দুপুরে মিরপুর শেরেবাংলায় মাহমুদউল্লাহ বলেন, অবশ্যই আমাদের টেস্ট সিরিজ জেতার সুযোগ আছে। প্রথম ম্যাচে আমরা অনেকটা কঠিন পরিস্থিতি থেকে ড্র বের করে নিয়েছি। এবং এটা আমাদের জন্য দারুণ একটা সুযোগ। ২০১৪ সালের পর টেস্ট সিরিজ জেতা হয়নি, এটা ভালো একটা সুযোগ। সব খেলোয়াড়রা ইতিবাচক চিন্তা করছে। ইতিবাচক চিন্তাগুলোই মাঠে কাজে লাগাতে পারলে ফলটা ভালো আসবে। ম্যাচ বা সিরিজ জেতার চাপ থাকলেও দলের সবাই বেশ ইতিবাচক। প্রতিপক্ষকে নিয়ে চুল-ছেঁড়া বিশ্লেষণ করে মাঠে নিজেদের সেরা খেলা উপহার দেয়ার মন্ত্র ছেলেদের। নিজেদের শক্তি-সামর্থ্য পূর্ণ প্রয়োগ করতে চায় মুশফিক-তামিমরা। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে যে ধরনের ম্যাচই খেলবেন, চাপ তো থাকবে। আমার কাছে মনে হয় স্কিলগুলোর প্রতি যদি বিশ্বাস থাকে এবং চ্যালেঞ্জটা নিতে যদি আপনি উদগ্রীব থাকেন এটা ইতিবাচকভাবে কাজে দিবে। আমি এটাই বিশ্বাস করি। আমার মনে হয় আমাদের সব খেলোয়াড়রা এভাবেই দেখছে। যোগ করেন মাহমুদউল্লাহ।
শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সবশেষ খেলা টেস্ট সিরিজও ড্র করেছিল বাংলাদেশ। গত বছর শ্রীলঙ্কা সফরে প্রথমে গলে টেস্ট ম্যাচে হারে বাংলাদেশ। পরবর্তীতে নিজেদের শততম টেস্ট ম্যাচে কলম্বো ঐতিহাসিক জয় তুলে নেয় সাকিব-তামিমরা। এবার সাকিব নেই। তামিম-মুশফিকরা মাহমুদউল্লাহর নেতৃত্বে দলকে জয় উপহার দিতে পারেন কিনা সেটাই দেখার।
চট্টগ্রাম টেস্টে প্রথম ইনিংসে বড় পুঁজি নিয়েও ২০০ রানে পিছিয়ে পড়েছিল বাংলাদেশ। অতীতে এমন অবস্থান থেকে অনেক টেস্টেই হারতে হয়েছে টাইগারদের। তবে এবার আর সেই ভুল করেনি তারা। দ্বিতীয় ইনিংসে দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে দাপুটে ড্র নিয়েই মাঠ ছেড়েছিল মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল। বাংলাদেশ ঘরের মাঠে শক্তিশালী, এখন সেটা মানতে আপত্তি করে না অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ডের মতো দলগুলোও। অনন্য এই সুযোগটি হাতছাড়া করতে চান না ইনজুরি আক্রান্ত সাকিব আল হাসানের অনুপস্থিতিতে ভারপ্রাপ্ত টেস্ট অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, অবশ্যই। লঙ্কানদের বিপক্ষে সিরিজটি জিততে পারলে তো বটেই ড্র হলেও দারুণ একটি ব্যাপার ঘটে যাবে। টেস্ট র‌্যাঙ্কিংয়ে প্রথমবারের মতো আটে ?উঠে যাবে টাইগাররা। তবে র‌্যাঙ্কিংয়ের বিষয়টি নিয়ে মোটেও তেমন কিছুই ভাবছেন না মাহমুদউল্লাহ, অবশ্যই সুযোগ। আর একটা ম্যাচ জিততে পারলে বাংলাদেশের জন্য জেতা হলো। র‌্যাঙ্কিং নিয়ে অতটা ভাবছি না। জিতলে অবশ্যই এটা ফেভার করবে। আর সেই জয় কিংবা ড্র’র লক্ষে চট্টগ্রামের মতোই খেলার পরিকল্পনা স্বাগতিক শিবিরে। সেই ইতিবাচক ও আগ্রাসী ক্রিকেট খেলা, একইভাবে খেলবো, পজেটিভ ইনটেন্ড থাকবে। চট্টগ্রামেও ব্যাটসম্যানরা বেশ ইতিবাচক ছিল, অ্যাগ্রেসিভ ছিল। একই মনোভাব থাকবে। রিয়াদের এমন মনোভাবকে আরও ইতিবাচক করে শেরেবাংলার স্পিন সহায়ক উইকেট। যেখানে ঘায়েল হয়েছিল বিশ্ব ক্রিকেটের দুই শক্তিশালী দল ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়া, পিচের কথা যদি বলি, দেখে মনে হয়েছে শুষ্ক পিচ। আমার মনে হয় এই উইকেটে রেজাল্ট আশা করতে পারি। এবং স্পিনারদের জন্য সহায়ক হবে। শ্রীলঙ্কাও মানছে টাইগাররা এখন দুর্দান্ত ক্রিকেট খেলছে। ঢাকা টেস্টের আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে দলটির অধিনায়ক দিনেশ চান্দিমাল যেমন বললেন, তারা খুবই ভালো, বিশেষ করে ঘরের মাটিতে। তারা এখানে ভালো পারফর্ম করে। আমরা তাদের কখনো হালকা করে দেখি না, তারা খুব ভালো ক্রিকেট খেলছে। চান্দিমালের দাবি, ওয়ানডের চেয়ে টেস্টে শক্তিশালী শ্রীলঙ্কা। কন্ডিশন এবং বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের জন্য আলাদা পরিকল্পনা নিয়েই লঙ্কানরা মাঠে নামবে, জানিয়েছেন তিনি, আমাদের টেস্ট দলটি ওয়ানডের তুলনায় বেশি অভিজ্ঞ। আমাদের জন্য তবু এটা চ্যালেঞ্জিং। তবে কন্ডিশন এবং তাদের খেলোয়াড়দের নিয়ে আমাদের আলাদা পরিকল্পনা আছে। এটা মাঠে ভালোভাবে প্রয়োগ করতে হবে।